• রবিবার, ২২ জুলাই ২০১৮, ৭ শ্রাবণ ১৪২৫
  • ||

আ. লীগের অনিয়ম মামলাও তাদেরই

প্রকাশ:  ১০ জুলাই ২০১৮, ২২:১৪
পূর্বপশ্চিম ডেস্ক
প্রিন্ট

রাজশাহীর পুঠিয়া ও দুর্গাপুর উপজেলায় ১৭টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরি-কাম নৈশপ্রহরী নিয়োগে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে পৃথক মামলা করা হয়েছে। বিদ্যালয় কমিটির সভাপতি, নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি ও সদস্যসচিবের বিরুদ্ধে মামলাগুলো করা হয়েছে। এতে স্থগিত হয়ে গেছে নৈশপ্রহরী নিয়োগপ্রক্রিয়া। অভিযোগকারী ও অভিযুক্তদের বেশির ভাগ স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, দুর্গাপুরে ১৬টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নৈশপ্রহরী নিয়োগে নানা অনিয়মের অভিযোগে গত ৩১ জুন রাজশাহীর আদালতে মামলা করা হয়। দুর্গাপুর উপজেলা পরিষদের নারী ভাইস চেয়ারম্যান বানেছা বেগম, জেলা পরিষদের সদস্য আব্দুল মান্নান ফিরোজ, দুর্গাপুর পৌরসভার মেয়র তোফাজ্জল হোসেন, কিসমত গণকৈড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আফসার আলী মোল্লা, জয়নগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সমসের আলী, ঝালুকা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোজাহার আলী মণ্ডল, দেলুয়াবাড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রিয়াজুল ইসলাম, পানানগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজাহার আলী একযোগে বাদী হয়ে নিয়োগ বাছাই কমিটির সভাপতি ও দুর্গাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও), উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলাটি করেছেন। মামলার বাদীরা স্থানীয় আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পদে আছেন।

মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে, ১ এপ্রিল উপজেলার ১৬টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ইউএনও স্বাক্ষরিত দপ্তরি-কাম নৈশপ্রহরী নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয়। কিন্তু বিদ্যালয়গুলোর এলাকার জনসাধারণকে অবগত করতে বিজ্ঞপ্তি স্থানীয় বা জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশের বিধান থাকলেও তাঁরা যোগসাজশের মাধ্যমে তাঁদের পছন্দের ব্যক্তিকে নিয়োগের জন্য গোপনে বিজ্ঞপ্তি (নোটিশ) প্রকাশ করেন। এতে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি এলাকার জনসাধারণ অবগত হতে না পারায় অনেক যোগ্য প্রার্থী আবেদন করতে পারেননি। এ ছাড়া টাকার বিনিময় তাঁদের পছন্দের প্রার্থী নিয়োগের চেষ্টা চলছে।

মামলার বাদীদের মধ্যে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী বানেছা বেগম বলেন, ‘আমাদের কাছে অভিযোগ আছে, তাঁরা বেআইনিভাবে নিয়োগপ্রক্রিয়া সম্পন্ন করার চেষ্টা করছিলেন। আমরা জনপ্রতিনিধিরা জনগণের স্বার্থে নিয়োগ বন্ধে মামলা করেছি। তাঁরা অযোগ্য প্রার্থী বাছাই করে প্রত্যেকের কাছে থেকে মোটা অঙ্কের টাকা নিয়েছেন। অথচ এলাকার যোগ্য প্রার্থীরা টাকা দিতে না পারায় তাঁদের চাকরি হচ্ছে না।’

দপ্তরি-কাম নৈশপ্রহরী বাছাই কমিটির সভাপতি ও দুর্গাপুরের ইউএনও আনোয়ার সাদাত বলেন, ‘অভিযোগের ভিত্তিতে নিয়োগপ্রক্রিয়া স্থগিত করা হয়েছে। তবে মামলা হয়েছে কি না জানি না।’