• বুধবার, ১৫ আগস্ট ২০১৮, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৫
  • ||

চাপ বাড়ছে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে

প্রকাশ:  ১৩ জুন ২০১৮, ১০:৩৬ | আপডেট : ১৩ জুন ২০১৮, ১২:১৪
গাজিপুর সংবাদদাতা
প্রিন্ট

গাজীপুরের ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক দিয়ে স্বাভাবিক গতিতে যানবাহন চলাচল করলেও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে দেখা দিয়েছে তীব্র যানজট। সকালে সৃষ্ট এ তীব্র যানজটে ঈদের ছুটিতে ঘরে ফেরা যাত্রীদের চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে

বাড়তি গাড়ির চাপ এবং অপ্রশস্ত সড়কের কারণে এই মহাসড়কে এ অবস্থা সষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছে হাইওয়ে পুলিশ। আর বেশি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ ও যানবাহন সংকটে ভোগান্তিতে রয়েছেন চন্দ্রা হয়ে উত্তরবঙ্গগামী যাত্রীরা।

বুধবার (১৩ জুন) সকাল থেকে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের চন্দ্রা ত্রিমোড় এলাকা দিয়ে যানবাহন চলাচল করছে স্বাভাবিক গতিতে। তবে কিছুটা যানবাহনের লম্বা সারি রয়েছে কোনাবাড়ী এলাকায়। বেলা যত বাড়ছে, যানবাহনের চাপও তত বাড়ছে।

ঈদে ঘরমুখো মানুষের চাপ বেড়ে যাওয়ায় চন্দ্রায় রয়েছে প্রয়োজনীয় যানবাহনের সংকট। আর এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে বাড়তি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ করছেন যাত্রীরা

টঙ্গী থেকে চান্দনা চৌরাস্তা পর্যন্ত ১২ কিলোমিটার পথে রাস্তার পাশে অবৈধ দোকানপাটও বসতে দিচ্ছে না পুলিশ। কিন্তু মঙ্গলবার বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত প্রবল বর্ষণে ১২ কিলোমিটার সড়কের বিভিন্ন স্থান পানিতে তলিয়ে যায়। ফলে সড়কের এক লেন ব্যবহার করায় যানবাহনের দীর্ঘ সারি তৈরি হচ্ছে।

বিশেষ করে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ভোগড়া বাইপাস মোড়ে রাস্তা পানিতে তলিয়ে থাকায় যানবাহন চালাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি হচ্ছে। স্থানীয়রা বলছেন, মহাসড়কের পানি সরানোর ড্রেনটি সরু হওয়ায় পানি দ্রুত সরছে না। ফলে রাস্তায় পানি জমে থাকছে এবং এতে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে।

অপরদিকে গাজীপুর মহানগরীর প্রাণকেন্দ্র বলা হয় চান্দনা চৌরাস্তাকে। অথচ সামান্য বৃষ্টি হলেই হাঁটুপানি জমে তলিয়ে যায় পুরো চান্দনা চৌরাস্তা এলাকা। এতে দুর্ভোগে পড়েন পথচারী, আশপাশের সরকারি বেসরকারি অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ মার্কেটের ব্যবসায়ীরা।

সরেজমিন এলাকায় গিয়ে দেখা যায় রহমান গাজীপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের অফিস, অনুপম সুপার মার্কেট, সড়ক পরিবহন অফিস, রহমান শপিংমল, ইসলাম প্লাজা, মসজিদ মার্কেটের সামনে পানি জমে আছে। পানিতেই সিএনজি অটোরিকশা, লেগুনা ও রিকসা রাখা আছে। বৃষ্টির পানির সঙ্গে ড্রেনের নোংরা পানি মিশে জমে থাকা পানি থেকে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। পানি ও দুর্গন্ধের কারণে পথচারীদেরও কষ্ট করে চলতে হচ্ছে।

গাজীপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. নাহিন রেজা বলেন, জয়দেবপুর-ঢাকা সড়কটি বিআরটি প্রকল্পের অধীনে চলে গেছে। জলাবদ্ধতার জন্য ড্রেন নির্মাণসহ সড়ক উন্নয়নের কাজ চলছে। কাজ শেষ হলে সমস্যা থাকবে না।

গাজীপুর,ঢাকা-টাঙ্গাইল,ঢাকা-ময়মনসিংহ,যানজট