• বুধবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৮, ৯ কার্তিক ১৪২৫
  • ||

বরিশাল-ঢাকা নৌরুটে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ

প্রকাশ:  ১৩ জুন ২০১৮, ১০:১৯
বরিশাল প্রতিনিধি
প্রিন্ট

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে নৌপথে ঢাকা ছাড়তে শুরু করেছেন ঘরমুখো মানুষ। এ জন্য সদরঘাটে নিরাপত্তা ব্যবস্থাও জোরদার করা হয়েছে। সতর্ক অবস্থানে রয়েছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। তবে ঈদ সামনে রেখে নির্ধারিত ভাড়ার দোহাই দিয়ে লঞ্চের টিকিটে অন্যান্য সময়ের চেয়ে বেশি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে।

খোঁজখবর নিয়ে জানা গেছে, গত ৮ জুন থেকে দেয়া হচ্ছে কেবিনের অগ্রিম টিকিট। বছরের অন্য সময় একজনের (সিঙ্গেল) কেবিন ভাড়া ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা হয়।

মঙ্গলবার দেখা গেল, নেয়া হচ্ছে এক হাজার ২০০ টাকা থেকে দেড় হাজার টাকা। দুজনের (ডাবল) কেবিন দেড় হাজার থেকে এক হাজার ৮০০ টাকার স্থলে নেয়া হচ্ছে দুই হাজার ৬০০ টাকা পর্যন্ত।

যাত্রীরা বলছেন, সরকার নির্ধারিত ভাড়া এক ধরনের প্রহসন। তারা প্রশ্ন রাখেন- বছরের অন্যান্য সময় লঞ্চ মালিকরা কম ভাড়া নিয়ে লাভ করতে পারলে ঈদের সময় কেন পারবেন না।

লঞ্চের সুযোগ-সুবিধার ওপর ভিত্তি করে কেবিনের ভাড়া ডেকের (তৃতীয় শ্রেণি) ভাড়ার চার, তিন, দুই ও দেড়গুণ নির্ধারিত রয়েছে। কিন্তু সব লঞ্চ মালিকই ডেকের ভাড়ার চারগুণ ধরে কেবিনের ভাড়া নির্ধারণ করেছেন। জানতে চাইলে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) সদরঘাট বন্দরের যুগ্ম-পরিচালক (নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা) আলমগীর কবির বলেন, ‘নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের প্রমাণ পেলে আমরা লঞ্চ মালিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়ে থাকি। এ জন্য আমাদের তদারকি দল কাজ করছে।’

তিনি বলেন, ‘ঈদে এখনও যাত্রীরা সেভাবে লঞ্চে ঘরে ফিরতে শুরু করেনি। আগামী বৃহস্পতি ও শুক্রবার ভীড় চূড়ান্ত আকার ধারণ করবে বলে মনে করছি। আমরা নিরাপত্তাসহ সব বিষয়ে সতর্ক আছি।'

অভিযোগ