• শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮, ৯ আষাঢ় ১৪২৫
  • ||
শিরোনাম

পাবনার ঈদ বাজারে ভারতীয় পোশাকের চাহিদা বেশি

প্রকাশ:  ১০ জুন ২০১৮, ১৬:২৬
পাবনা প্রতিনিধি
প্রিন্ট

পাবনায় জমে উঠেছে ঈদের বাজার। ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে দর্জি, পাদুকাশিল্প, কসমেটিকসহ অন্যান্য পণ্যের দোকানিরা। অভিজাত শপিং মল থেকে শুরু করে ফুটপাতের দোকান গুলোতে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়। পাবনার বাজারে গত বছর দেশি পোশাকের রাজত্ব থাকলেও এ বছর দখল করেছে ভারতীয় পোশাক। এবার ভারতীয় নায়িকা ও সিরিয়ালের নামে তেমন কোনো পোশাক আসেনি। তবে ফ্লোর টার্চ, ঝিলিক, টুপাট বাহুবলির মতো পোশাক বাজার দখল করেছে। তবে গরমের জন্য বেশির ভাগ ক্রেতাই পছন্দ সুতি কাপড়। আর শাড়ির বাজারে দেশি শাড়িই বিক্রি হচ্ছে। বিক্রেতারা বলছে দাম নাগালের মধ্যে আছে। ক্রেতাদের তেমন কোন অভিযোগ নেই দাম নিয়ে। 

ঈদের প্রধান আকর্ষণ নতুন পোশাক। তাই রোজার শুরুতেই পাবনা শহরের নিউমার্কেট, রবিউল মার্কেট, খান বাহাদুর শপিংমল, স্টার কমপ্লেক্স, হাজী মার্কেট, হুমায়রা মার্কেট, সেভেন স্টার, এআর প্লাজা, এআর কর্ণার, নিউ পয়েন্ট, পৌর হকার্স মার্কেট, আওরঙ্গজেব সড়ক, মহিলা কলেজ রোডসহ বিভিন্ন অভিজাত মার্কেট ঘুরে দেখা গেছে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়। এক দোকান থেকে আরেক দোকানে ক্রেতারা খুঁজে ফিরছেন পছন্দের পোশাক কিনতে। যারা শপিং মলে যেতে পারছেন না তারা ভীড় করছেন ফুটপাতের দোকানে। কাপড়ের দোকানের পাশাপাশি সেন্ডেল, প্রসাধনী ও টেইলার্সের দোকানে ভিড় বাড়ছে।

সাধ্যের মধ্যে সমন্বয় করে ক্রেতারা পোশাক কিনছেন। গৃহিণীদের পছন্দ জামদানি ও দেশি তৈরি সুতির শাড়ি। তবে সবচেয়ে বেশি চলছে দেশিয় তৈরি সুতির শাড়ি। অপরদিকে রেডিমেড পোশাক কিনতে সাধারণের আগ্রহ থাকলেও গজ কাপড়ের দোকানও বেশ চলছে।

রবিউল মার্কেটের পোশাক বিক্রেতা আবৃত্তি’স আলমিরা-২ এর স্বত্তধিকারী সুজন হোসেন জানান, এবার কেনাবেচা বেশ ভালো। ঈদ যেহেতু গরমের সময় সেদিক লক্ষ্য রেখে বেশির ভাগ মহলা ক্রেতা সুতি কাপরের পোশাক কিনছেন। আর দামও রয়েছে ক্রেতাদের লাগানের মধ্যে। দিন যতই যাচ্ছে বাড়ছে ক্রেতাদের ভিড়।

শহরের বৃহৎ বাবুল টেইলার্সের পরিচালক শাহজাহান আলী বাবুল জানান, এ বছর রমজানের শুরুর এক সপ্তাহ আগে থেকেই পোশাক তৈরি অর্ডার পাওয়া যাচ্ছে। গত বছর তার টেইলার্সে প্রায় সাড়ে তিন হাজার প্যান্ট এবং তিন হাজার শার্ট তৈরির অর্ডার নিয়েছিলেন। এবার আরো বেশি অর্ডার হবে বলে তিনি আশা করেন। বর্তমানে কারিগর দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন।

পাবনার পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির (পিপিএম) জানান, ক্রেতারা যাতে শান্তিপূর্ন পরিবেশে মার্কেটে কেনাকাটা করতে পারেন সেজন্য বিভিন্ন মার্কেটে ও এর আশপাশের এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পাশাপাশি মোবাইল টিম টহল জোরদার করা হয়েছে।

ওএফ