• শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮, ৯ আষাঢ় ১৪২৫
  • ||
শিরোনাম

এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল

হাসপাতালে দালাল চক্রের কারণে দিশেহারা সাধারণ রোগী

প্রকাশ:  ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৫:১০
দিনাজপুর প্রতিনিধি
প্রিন্ট
খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে দিনাজপুর এম.আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা । অনিয়ম-দুর্নীতি আর বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত হাসপাতালের কার্যক্রম। নোংরা আর অপরিস্কার পরিবেশে সুস্থ মানুষও অসুস্থ হয়ে পড়ছে । 

 ৫শ শয্যা বিশিষ্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালটি চালু হওয়ার পর থেকে চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত এ অঞ্চলের মানুষ। চিকিৎসক স্বল্পতা, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের অনুপস্থিতি আর দালালদের দৌরাত্ব্যে অনেক আগ থেকেই চলে আসছে । যা দিন দিন বেড়েই চলছে। এমন পরিস্থিতিতে অতিষ্ট রোগী ও তাদের আত্মীয়-স্বজন। মেডিকেল কর্তৃপক্ষ তা অবশ্য স্বীকার করে নিচ্ছেন। ক্লিনিক দালাল ও অসৎ চিকিৎসকদের খপ্পড়ে পড়ে প্রতিনিয়ত প্রতারিত হচ্ছেন চিকিৎসা সেবা নিতে আসা অসংখ্য মানুষ।

১২১ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০০৭ সালে নির্মিত হয় দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতলের পথ চলা শুরু হয় ২০১৭ সালে মাঝামাঝি সময়ে এসে দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল নাম পরিবর্তন করে সদর আসনের সংসদ সদস্য ইকবালুর রহিমের বাবার নামে এম. আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল নামকরন করা হয় । 

রোগীদের অভিযোগ, চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও করতে হয় বাইরে থেকে। সময়মতো পাওয়া যায় না ডাক্তার । সরকারি এ হাসপাতালে ৬৮% শতাংশ রোগী পাচ্ছেন না চিকিৎসার প্রয়োজনীয় ওষুধ-পথ্য।

হাসপাতালে ১৫২ জন চিকিৎসকের পদ থাকলেও বর্তমানে কমরত রয়েছেন ৬১ জন চিকিৎসক। এর মধ্যে ২০ জন চিকিৎসক উচ্চতর শিক্ষা গ্রহনের জন্য বাইরে রয়েছে। নিয়মিত বেতন ভাতা নিলেও এর মধ্যে অনেকের রয়েছে দায়িত্ব পালনে অনীহা । নার্সের স্বল্পতাতো আছেই। তৃতীয়- চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী এবং সেবিকার সমন্বয়ে ১ হাজার ৪৬ জন জনবলের চাহিদা প্রেরণ করা হলেও জনবল রয়েছে ২’শ জন।

স্থানীয় সংসদ সদস্য জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিমের প্রচেষ্টায় সম্প্রতি এ হাসপাতালে অত্যাধুনিক চিকিৎসা সেবা ও রোগ নির্ণয় পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য যন্ত্রপাতি স্থাপিত হয়েছে। কিন্তু তা পরিচালনার জন্য নেই কোন দক্ষ জনবল(টেশনিশিয়ান)। টেকনিশিয়ানের অভাবে অধিকাশ সময় বন্ধ থাকছে এসব যন্ত্রপাতি। চিকিৎসদের চেম্বারগুলো বেশিরভাগ সময় থাকছে মেডিক্যাল দালাল আর রিপ্রেজেন্টটিভদের দখলে। অনিয়ম আর দূর্নীতির কথা এড়িয়ে গেলেও জনবলের অভাব ও দালালদের দৌরাত্ব্যে চিকিৎসা কার্যক্রম ব্যাহত হওয়ার কথা স্বীকার করেছেন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের  পরিচালক ডা. সারওয়ার জাহান ।

জনবল সংকট, অনিয়ম আর দূর্নীতি’র অক্টোপাসে অসুস্থ হয়ে পড়েছে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম  মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। অসুস্থ রোগী’র নয়, আগে এ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সু-চিকিৎসা প্রয়োজন-এমনটাই মন্তব্য এ অঞ্চলের ভূক্তভোগী মানুষের।