• বুধবার, ১৫ আগস্ট ২০১৮, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৫
  • ||

সাকিবের অধিনায়কত্ব নিয়ে প্রশ্ন

প্রকাশ:  ১২ জুন ২০১৮, ১৮:২৩
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রিন্ট

সোমবার সন্ধ্যায় সোনারগাঁও হোটেলে বিসিবির ইফতার ও সালমা-রুমানা-জাহানারাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠান রেখেই সাকিবের তড়িঘড়ি হোটেল ত্যাগ করা জন্ম দিল কৌতূহলী প্রশ্নের। তখনই হোটেলের বলরুমের একাংশে গুঞ্জন, আজ রাতেই সপরিবারে ঈদ করতে যুক্তরাষ্ট্র পাড়ি জমাচ্ছেন সাকিব আল হাসান। মধ্যরাতে তার ফ্লাইট।

তবে ইফতার ও দোয়া মাহফিল শুরুর আগে ১ ঘণ্টার আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে বোর্ড পরিচালকদের মধ্যে। এই সভায় নারী ক্রিকেট দলের সাফল্যে থেকে শুরু করে উঠে এসেছে নানান বিষয়। তবে অবাক করে দেয়া বিষয় হচ্ছে বোর্ড পরিচালকদের এই সভায় কথা হয়েছে সাকিব আল হাসানের টেস্ট অধিনায়কত্ব প্রসঙ্গেও। দেরাদুনে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ৩ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়াটা ভালো চোখে দেখেনি বিসিবি। এমনকি বাংলাদেশ দলের অধিনায়কত্ব রদবদলের কথাও ভাবছে বিসিবি।

বিকেল সাড়ে পাঁচটা থেকে শুরু করে সন্ধ্যে সাড়ে ছয়টা পর্যন্ত হয় বোর্ড পরিচালকদের সভা। সেই সভা শেষে নির্ভরযোগ্য এক সূত্র জানিয়েছে সাকিব আল হাসানের বদলে আবারও মুশফিকুর রহিমকে টেস্ট অধিনায়ক করা যায় কি-না সেই প্রস্তাব উঠেছে সভায়।

তবে এই প্রস্তাবের পক্ষে বিপক্ষে তাৎক্ষণিকভাবে তেমন কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। প্রস্তাবটি প্রাথমিক আলোচনার পর্যায়েই রয়ে গেছে। জানা গেছে বোর্ডের পরবর্তী সভায় এই বিষয়ে আনুষ্ঠানিক আলোচনা হবে।

দেরাদুনে সবশেষ টি-২০ সিরিজে সাকিবের অধিনায়কত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল সবার মনেই। তার দল পরিচালনা, বোলার ব্যবহার এবং দায়িত্ব বোধ নিয়েও কথা উঠেছিল। তাই বোর্ড সভায় অধিনায়ক সাকিবের পারফরমেন্স পর্যালোচনা করা হয়েছে। সেখানেই সাকিবের অধিনায়কত্বের প্রশ্ন ওঠেছে।

২০১১ সাল থেকে দীর্ঘ ৬ বছর বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের টেস্ট অধিনায়ক ছিলেন মুশফিকুর রহিম। গত বছরের অক্টোবরে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে বাজে পারফরম্যান্সের কারণে তাকে সরিয়ে সাকিব আল হাসানকে দেয়া হয় টেস্টের অধিনায়কের দায়িত্ব।

তবে অধিনায়কত্ব পেয়ে এখনো পর্যন্ত টেস্টে মাঠে নামা হয়নি সাকিবের। আসন্ন ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে প্রথমবারের মতো দ্বিতীয় দফায় বাংলাদেশ দলকে টেস্ট ক্রিকেটে নেতৃত্ব দেবেন সাকিব। ক্যারিবীয় সফরের দলের পারফরম্যানসই হয়তো নিশ্চিত করে দেবে অধিনায়ক সাকিবের ভবিষ্যৎ।

/এস কে