• রবিবার, ১৯ আগস্ট ২০১৮, ৪ ভাদ্র ১৪২৫
  • ||

ল্যাটিন দেশে যেতে পারে বিশ্বকাপ

প্রকাশ:  ০৪ জুন ২০১৮, ১৫:৫৯
শেখ মোহাম্মদ আসলাম
প্রিন্ট
ফাইল ছবি

রাশিয়া বিশ্বকাপ একেবারেই নাকের ডগায়। ঢাকঢোল পিটিয়ে আগামী ১৪ জুন রাশিয়া ও সৌদি আরবের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে বিশ্বের অন্যতম সেরা এই ক্রীড়া ইভেন্ট। প্রতি চার বছর অন্তর জাঁকজমকপূর্ণ এই ক্রীড়া আসর দেখার অপেক্ষায় থাকে বিশ্ব। আমিও তার ব্যতিক্রম নই। আগ্রহ নিয়েই এবার বিশ্বকাপ দেখব। প্রতিটি ম্যাচই উপভোগ করার চেষ্টা করব। যারা ভালো খেলবে তাদের সমর্থন করব।

গণমাধ্যমের খবরে যেটি দেখছি, রাশিয়া দারুণভাবে বিশ্বকাপের আয়োজন করছে। সবকিছু রঙিনভাবে সাজিয়ে তুলেছে। বিভিন্ন দেশ থেকে হাজার হাজার ফুটবলপ্রেমী বিশ্বকাপ দেখতে রাশিয়ায় যাবে। সবাই যাতে খেলা দেখার পাশাপাশি রাশিয়ার পরিবেশে মুগ্ধ হতে পারে রাশিয়া তেমনভাবেই সবকিছু করছে। সবকিছু মিলিয়ে মনে হচ্ছে, এবারের বিশ্বকাপ জমবে।

বিশ্বকাপের সময় ছোট বড়, নারী-পুরুষ সকলেরই মনোযোগ থাকবে খেলার দিকে। এ সময় মানুষ পাপাচার থেকে দূরে থাকবে। ফুটবল বিশ্বকাপের সময় বরাবরই একটি উৎসবমুখর পরিবেশ থাকে। এবারও থাকবে। ইতোমধ্যে আমরা তার আভাস পেতে শুরু করেছি। শহরে-গ্রামে সবখানেই ফুটবলপ্রেমীরা জড়ো হয়ে খেলা দেখবে, আনন্দ করবে। তাই তো দর্শকরা পছন্দের দল জয়ী হলে খুশি হবে। আবার প্রিয় দল হেরে গেলে দুঃখ পাবে। কারণ, বিশ্বকাপ আমাদের আবেগের সঙ্গে জড়িত।

রাশিয়া বিশ্বকাপে অংশ নিবে না চারবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ইতালি। অংশ নিবে না নেদারল্যান্ডস ও চিলির মতো বড় দুইটি দল। এটা কিছুটা হলেও বিশ্বকাপে প্রভাব ফেলবে। মনের অজান্তে অনেকেই এই দলগুলোকে খুঁজবে। অনেকেই হয়তো এই তিন দলের কোনো খেলোয়াড়কে সাপোর্ট করেন। কিন্তু বিশ্বকাপে তারা তাদের খেলা দেখতে পারবেন না। তারপরও আমি মনে করি, যারা আছে তাদের সমন্বয়ে দারুণ একটি বিশ্বকাপ হবে। নতুন কোনো দল চমক দেখাবে।

বিশ্বকাপে কারা ফেভারিট তা এখনই বলা কঠিন। গ্রুপ পর্ব শেষ না হলে বলা যাবে না। ভালো দলও গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিতে পারে। আবার তুলনামূলক খারাপ দলও নকআউট পর্বে কোয়ালিফাই করতে পারে। তারপরও আমি বলব জার্মানি, ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, ফ্রান্সের ভালো সম্ভাবনা আছে। গত তিন আসরে শিরোপা জিতেছে ইউরোপের দল। ২০০৬ সালে ইতালি, ২০১০ সালে স্পেন ও ২০১৪ সালে চ্যাম্পিয়ন হয় জার্মানি। কিন্তু আমি মনে করি, এবার হয়তো ল্যাটিন আমেরিকার কোনো দেশ শিরোপা জিতবে।

ল্যাটিন আমেরিকা থেকে এবার অংশ নিচ্ছে ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, উরুগুয়ে, কলম্বিয়া ও পেরু। ব্রাজিল দলকে নেতৃত্ব দিবেন নেইমার। এই দলে বেশ কয়েকজন ভালো মানের খেলোয়াড় আছেন। যেমন ফিলিপে কুটিনহো ও গ্যাব্রিয়েল জিসাস সম্প্রতি সময়ে দারুণ ফুটবল খেলছেন।

অন্যদিকে, আর্জেন্টিনা দলে রয়েছেন বিশ্বের অন্যতম সেরা তারকা লিওনেল মেসি। রাশিয়া বিশ্বকাপই হতে পারে তার ক্যারিয়ারের শেষ বিশ্বকাপ। তাই তারা চাইবে এবার শিরোপা নিজেদের ঘরে তুলতে। তাদের দলে লিওনেল মেসি ছাড়াও সার্জিও আগুয়েরো, গঞ্জালো হিগুয়েইন ডি মারিয়ার মতো তারকারা রয়েছেন। উরুগুয়ে দলটিও ভালো।

গত আসরের চ্যাম্পিয়ন জার্মানি দলটিও ভালো। একটি ভারসাম্য দল। তারা দল হিসাবে ভালো খেলে। দলের কাউকেই ছোট করে দেখার সুযোগ নেই। এবারের আসরে জোয়াকিম লোর জার্মানিরও ভালো কিছু করার সম্ভাবনা আছে।

ব্যক্তিগতভাবে আমি কোনো দলকে সাপোর্ট করব না। যারা ভালো খেলবে তাদের সমর্থন করব। খেলা উপভোগ করব। আমার চাওয়া, এমন একটি বিশ্বকাপ হোক যাতে বিশ্বের প্রতিটি মানুষই উপভোগ করতে পারে।

বাংলাদেশের মানুষের কাছে ফুটবল অত্যন্ত জনপ্রিয় হলেও এই খেলায় আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বাংলাদেশ অতোটা ভালো করতে পারছে না। র‌্যাঙ্কিংয়ে বর্তমানে বাংলাদেশ রয়েছে ১৯৭তম অবস্থানে। একজন সাবেক ফুটবলার হিসাবে আমি এতে হতাশ। আশা করি, ভালো পরিকল্পনার মাধ্যমে সামনে বাংলাদেশ ফুটবলে এগিয়ে যাবে। সূত্র, ঢাকা টাইমস।

লেখক: শেখ মোহাম্মদ আসলাম, সাবেক ফুটবলার, বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল।

বিশ্বকাপ,শেখ মোহাম্মদ আসলাম