• রবিবার, ১৯ আগস্ট ২০১৮, ৪ ভাদ্র ১৪২৫
  • ||

কোহলির নেতৃত্বে ভারতের ইতিহাস

প্রকাশ:  ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১২:১৬
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রিন্ট

মহম্মদ আজাহারউদ্দিন, রাহুল দ্রাবিড়, মহেন্দ্র সিং ধোনি যা পারেননি সেই অধরা স্বপ্নকে বাস্তবের বাইশ গজে ফুটিয়ে তুললেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি এবং তাঁর সতীর্থরা৷ ২৫ বছরে এই প্রথম দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে ওয়ান ডে সিরিজ জিতল ভারত৷অভূতপূর্ব, অনবদ্য, অনন্যসাধারণ, এরকম যে কোন বিশেষণই কম পড়ে দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে প্রোটিয়াদের হারিয়ে ভারতের এই জয়ের জন্য৷

পোর্ট এলিজাবেথের সেন্ট জর্জেস পার্কে টস জিতে এদিন ভারতকে প্রথমে ব্যাট করতে পাঠান প্রোটিয়া অধিনায়ক এডেন মার্করাম৷ দারুন শুরু করেও দুটি গুরুত্বপূর্ণ রান আউটে ব্যাকফুটে যেতে হয় ব্লু’বাহিনীকে৷সতীর্থদের রান-আউটের করেন টিম ইন্ডিয়ার ‘হিট-ম্যান’৷প্রথমে ক্যাপ্টেন কোহলি এবং তার কিছুক্ষণ পরেই অজিঙ্কা রাহানে৷ক্রিজে জমে যাওয়ার পরও ব্যক্তিগত ৩৬ রানে রান-আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন স্বপ্নের ফর্মে থাকা কোহলি৷এর ছ’ ওভার পরেই একই ঘটনা রাহানের (৮) সঙ্গে৷উলটো দিকে সেই রোহিত৷নিজের ‘কল’-এ বিরাট এবং রাহানে এগিয়ে গেলেও ফেরত পাঠান রোহিত৷কিন্তু ততক্ষণে অনেক দেরি হয়ে যায়৷

প্রথম কোহলি এবং পরে একইভাবে রান-আউট হয়ে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন রাহানে৷দু’জনের রান-আউটে কিছুটা হলেও দোষী রোহিত৷রোহিত জোড়া রান-আউটের দায় কাঁধে নিয়ে সেঞ্চুরি করলেও কোহলি হয়ে উঠতে পারলেন না৷ব্যক্তিগত ১১৫ রানে প্যাভিলিয়নে ফিরে যান রোহিত৷১২৬ বলের ইনিংসে চারটি ওভার বাউন্ডারি এবং ১১টি বাউন্ডারি মারেন টিম ইন্ডিয়ার ডান হাতি ওপেনার৷বাকিরা কেউ পঞ্চাশের গণ্ডি ছুঁতে পারেননি৷ দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ক্যাপ্টেন কোহলির ৩৬৷ওপেনিং জুটিতে ৪৮ রান যোগ করে ধাওয়ান (৩৪) প্যাভিলিয়নে ফিরলেও দ্বিতীয় উইকেটে রোহিত-কোহলির সেঞ্চুরি (১০৩) পার্টনারশিপে বড় রানের ভিত গড়ে ভারত৷রোহিতের শতরানে ভর করে প্রোটিয়াদের সামনে ২৭৫ রানের লক্ষ্য রাখে ভারত৷

বড় লক্ষ্য নিয়ে খেলতে নেমে শুরুটা মন্দ করেনি মার্করাম-রা৷৬ নম্বর ওভার চলাকালীন ৯ রানে খেলতে থাকা প্রোটিয়া অধিনায়কের সহজ ক্যাচ ফেলেন শ্রেয়স৷ জীবনদান পেয়ে ৩২ বলে ৩২ রানের একটি ইনিংস খেলে আউট হন মার্করাম৷পরে ব্যাট করতে এসে দু’অঙ্কের ঘরে পৌঁছতে পারেননি এবি ডি’ ভিলিয়ার্স ও জে পি ডুমিনি৷ তবে ৩৮ রানের মাথায় জীবনদান পাওয়া হাসিম আমলা ৯২ বলে ৭১ রানের একটি প্রয়োজনীয় ইনিংস খেলেন৷তিনি ক্রিজে থাকাকালীন ম্যাচ দক্ষিণ আফ্রিকার হাত থেকে পুরোপুরি বেরিয়ে যায়নি৷আমলা আউট হওয়ার পর মাত্র ৩৫ রানে বাকি ৫ উইকেট হারায় প্রোটিয়া-রা৷২০১ অল আউট হয় দক্ষিণ আফ্রিকা৷

আফ্রিকান সাফারিতে প্রথমবার সিরিজ জয়ের হাতছানি ছিল বিরাটদের সামনে৷কিন্তু জো’বার্গে বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচে ডাকওয়ার্থ-লুইস এ বাড়তি সুবিধা পেয়ে ম্যাচ জিতে নেয় প্রোটিয়ারা৷কিন্তু এবার ইতিহাস বদলানোর লক্ষ্য নিয়ে খেলতে নামা বিরাট ব্রিগেড এক ম্যাচ বাকি থাকতেই সিরিজ পকেটে পুরে নেয়৷ পোর্ট এলিজাবেথের সেন্ট জর্জ পার্কে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৭৩ রানে হারিয়ে ৫ম ম্যাচ জিতল বিরাটরা৷সেন্ট জর্জ পার্কে ফ্লেয়ার অব দ্য ম্যাচ হন রোহিত শর্মা৷

আগের ২৫ বছরেরে ইতিহাস:

১৯৯২-৯৩ আজহারউদ্দিনের অধিনায়কত্বে ৭ ম্যাচের সিরিজ ৫-২ হারে ‘মেন ইন ব্লু’৷

২০০৬-০৭ রাহুল দ্রাবিড়ের নেতৃত্বে ৫ ম্যাচের সিরিজ ৪-০ হারে ভারত৷

২০১০-১১ মহেন্দ্র সিং ধোনীর ভারত ৫ ম্যাচের সিরিজ ২-৩ হারে৷

কোহলি যে নতুন ইতিহাস লিখলেন:

২০১৭-১৮ বিরাট কোহলির নেতৃত্বাধীন ভারত ৬ ম্যাচের সিরিজ জেতে (এখনো অবধি ৪-১)

১ম ম্যাচ- কিংসমিড,ডারবান– ৬ উইকেটে জয় বিরাট ব্রিগেডের৷

২য় ম্যাচ- সুপার স্পোর্টস পার্ক, সেঞ্চুরিয়ন- ৯ উইকেটে জয় ভারতের৷

৩য় ম্যাচ- নিউল্যান্ডস, কেপটাউন- ১২৪ রানে জয় ‘মেন ইন ব্লু’র৷

৫ম ম্যাচ – সেন্ট জর্জ পার্ক, পোর্ট এলিজাবেথ- ৭৩ রানে জয় ভারতের৷

/এস কে