• বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ৩০ কার্তিক ১৪২৫
  • ||

মিডিয়ার উপর চটেছেন খালেদ মাহমুদ সুজন

প্রকাশ:  ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১১:৫০
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রিন্ট

বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয় দলে প্রধান কোচের পদটি খালি। প্রধান কোচ নিয়োগ দেয়ার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। প্রধান কোচ না থাকায় বর্তমানে দলের মূল দায়িত্বটা পালন করছেন টেকনিক্যাল ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন। নির্ধারিত সময়ের আগেই শেষ হয়েছে টেস্ট সিরিজ। অন্তত আড়াই দিন হাতে রেখেই সিরিজ জিতে নিয়েছে লঙ্কানরা। তাই অনেকটা রিলাক্সেই সময় কাটছে তাদের। পক্ষান্তরে একেবারেই উল্টো অবস্থা টাইগার শিবিরে। বিকেলে ও সন্ধ্যায় কঠোর অনুশীলন করছে টাইগাররা। ওয়ানডে-টেস্ট হাতছাড়া, বাকি টি-টোয়েন্টি।

প্রশ্নের তীর ছুটে যাচ্ছে দলের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদের দিকে। ত্রিদেশীয় সিরিজের আগে বড় দায়িত্ব পেয়েছিলেন, নিজেকে দুর্দান্ত ‘টেকনিশিয়ান’ হিসেবে প্রমাণ করার সুযোগ ছিল।

তার অধীনে দল শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডে ও টেস্টে বাজেভাবে হেরেছে। তাছাড়া চট্টগ্রাম টেস্টে খেলা মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতকে ঢাকা টেস্টে খেলানো হয়নি। ঢাকা টেস্টে একাদশে না থাকা মোসাদ্দেক ওই সময় আবাহনীর হয়ে ডিপিএলের ম্যাচ খেলেছেন।

টেকনিক্যাল ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন আবার আবাহনীরও কোচ। মোসাদ্দেককে ঢাকা টেস্টে একাদশে না রাখার পেছনে মূল ভূমিকায় খালেদ মাহমুদ সুজন ছিলেন এমন প্রশ্ন উঠছে। সব বিষয় নিয়ে কথা বলতে গিয়ে সোমবার মিডিয়ার উপর চটেছেন খালেদ মাহমুদ সুজন। খালেদ মাহমুদ সুজন বলেছেন, দল খারাপ করেছে। দায় আমি নিতেই পারি। হয়তো আমাদের পরিকল্পনায় ভুল ছিল। সঙ্গে অন্যান্য বিষয়ও থাকতে পারে। আমি দায়িত্ব চালিয়ে যেতে আগ্রহী নই। এ বিষয় নিয়ে বোর্ডের সঙ্গে কথা বলব। দলের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে আর ইচ্ছা করছে না। জায়গাটা নোংরা লাগছে।

নোংরা জায়গাটা আসলে কী? বিষয়টি ব্যাখ্যা করতে গিয়ে খালেদ মাহমুদ সুজন বলেন, নোংরা বলতে মিডিয়া যেভাবে বলা হয়। মিডিয়াও আমাদের ক্রিকেটের অন্তরায়। মিডিয়ার কারণে আমাদের ক্রিকেটে আটকে আছে কি না সেটা নিয়েও আমার প্রশ্ন আছে।

/এস কে

apps