• শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫
  • ||

‘পুলিশের গাড়ি টোল দেবো কেন’- বলেই মারধোর (ভিডিও)

প্রকাশ:  ২১ অক্টোবর ২০১৮, ১৯:০০ | আপডেট : ২১ অক্টোবর ২০১৮, ২০:০৮
ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি
প্রিন্ট

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সৈয়দ নজরুল ইসলাম সড়ক সেতুর টোল না দিয়ে গাড়ি যেতে না দেয়ায় টোল প্লাজায় কাউন্টারে দায়িত্বরত টোল আদায়কারী প্রতিষ্ঠানের কম্পিউটার নেটওয়ার্ক সিস্টেমের সিকিউরিটি সুপারভাইজার আহমেদ আলী, টোল সুপারভাইজার নুর হোসেন ও টোল কালেক্টর মো.মুমিনসহ কর্তবরত পুলিশ সদস্যকে মারধোরের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

গতকাল শনিবার (২০ অক্টোবর) দিবাগত রাত ১২টার দিকে সৈয়দ নজরুল ইসলাম সড়ক সেতুর টোল প্লাাজার ভৈরব প্রান্তের প্রাইভেটকারের মালিক ফারহান ও ভৈরব সার্কেল অফিসের এএসপি এএইচএম কামরুল ইসলাম এ ঘটনা ঘটায় বলে অভিযোগ করা হয়।

সৈয়দ নজরুল ইসলাম সেতুর সিএনএম এর সিকিউরিটি সুপারভাইজার আহমেদ আলী অভিযোগ করে জানান, গতকাল শনিবার রাত আনুমানিক ১২টার দিকে সাদা রঙ্গের একটি প্রাইভেটকারে গাড়ির মালিক শহরের চন্ডিবের গ্রামের মৃত ফরিদ মিয়ার ছেলে ফারহান ও ভৈরব সার্কেল কামরুল ইসলাম সহ কয়েকজন মদ্যপায়ী অবস্থায় গাড়ির ভিতরে ছিল। পিছনে পুলিশের একটি পিকআপ ছিল। কাউন্টারে এসে একজন গাড়িতে পুলিশের এএসপি বসে থাকার কথা বলে টোল না দিয়ে সেতু পার হতে চাইলে কাউন্টারে দায়িত্বরত ব্যক্তি যেতে না দেয়ায় তারা টোল আদায়কারীদের উপর চড়াও হয়। এক পর্যায়ে গাড়ি থেকে নেমে বেশ কয়েকজনকে মারধর করে। ভৈরব সার্কেলও তখন কয়েকজনকে মারধর করেন বলে অভিযোগ করেন ভোক্তভোগিরা। ঘটনার পুরো ভিডিও সিটি টিভির ফুটেজে রয়েছে বলেও অভিযোগকারীরা জানান।

টোল কালেক্টর মুমিন বলেন, হঠাৎ একটি সাদা রংয়ের প্রাইভেটকার করে দুজন লোক টোল প্লাজা পার হওয়ার সময় টোল আদায়ের জন্য গাড়ি থামানো হলে গাড়ির ভিতর থেকে একজন বলেছেন পুলিশের গাড়ি টোল দেবো কেন। তারপরই আমি গাড়ির নাম্বার জানতে চাইলে তারা আমাকে গালাগাল দেয়। তখনই আমাদের লোক গাড়ির নাম্বার সংগ্রহ করে টোল ফি ক্লিয়ার দিতে দেরি হওয়ায় গাড়ী থেকে বের হয়ে আমাকে মারধোর করে গাড়ির ভিতরে থাকা দুজন তারা গাড়ি থেকে বের হয়ে অশালীন গালাগালি ও মারধোর করে ।

এ ঘটনা বিষয়ে জানতে চাইলে ভৈরব সার্কেল অফিসের এএসপি এএইচএম কামরুল হাসান কোন ধরণের বক্তব্য দিতে রাজি না হয়ে এক পর্যায়ে তিনি বলেন , আমাদের কাছে এ বিষয়ে কোন লিখিত অভিযোগ আসেনি। যদি কোন লিখিত অভিযোগ আসে তাহলে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

এ ঘটনায় প্রাইভেটকারের মালিক ফারহানের সাথে যোগাযোগ করা যায়নি। তবে সাংবাদিকদের হাতে সংরক্ষিত সিসি টিভির ফুটেজে অভিযুক্তদের ঘটনায় জড়িত থাকার আলামত দেখা গেছে।

/একে/এসএফ

কিশোরগঞ্জ
apps