• বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮, ৩ কার্তিক ১৪২৫
  • ||

‘ছাত্রলীগ তো এমনই হওয়া উচিৎ’

প্রকাশ:  ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৬:৩৭ | আপডেট : ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১:৩৫
ঢাবি প্রতিনিধি
প্রিন্ট

গত শুক্রবার ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে শুরু হয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা। সেদিন থেকেই ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সেবায় তথ্য কেন্দ্র, সুপেয় পানি বিতরণ, কলম ও জয় বাংলা বাইক সার্ভিসের ব্যবস্থা করেছে ছাত্রলীগ।

শুক্রবার ‘খ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা চলাকালেও ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের তৎপরতা ছিল চোখে পড়ার মতো। আর এ মহতী উদ্যোগের নেতৃত্বে রয়েছেন ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) শাখার সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাস।

আজ ডাকসু ভবনের সামনেই দেখা গেল এমনই এক মনোমুগ্ধকর দৃশ্য। গলায় স্বেচ্ছাসেবকের কার্ড ও কাঁধে পানির কেস নিয়ে ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি নিজেই নেমে পড়েন শিক্ষার্থীদের সেবায়।

সঞ্জিত চন্দ্র দাস সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটা আমাদের দায়িত্ব। কারণ আমরাও ছাত্র। আমরা হচ্ছি শিক্ষা শান্তি ও প্রগতির পতাকাবাহী সংগঠন। এ জন্য শিক্ষার প্রশ্নে শিক্ষার্থীদের কলম দিয়েছি। আর পানি হচ্ছে একটা আর্জেন্ট নিড। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের পানির প্রয়োজন হয়। তাই আমরা পানির ব্যবস্থা করেছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘ভবিষ্যতে আরও ভালো কিছু করার চেষ্টা করব। আর আমরা যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সেটি যেন আমাদের আচরণ দেখে বোঝা যায়। সে জন্য আমরা আমাদের এসব কার্যক্রম অব্যাহত রাখবো।’

শিক্ষার্থী ও অভিভাকদের পাশে দাঁড়িয়ে ইতোমধ্যে বেশ প্রশংসিত হয়েছে বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া ছাত্র সংগঠনটি। তাদের এমন কর্মকাণ্ডে সন্তোষ প্রতাশ করেছেন অভিভাবকরাও।

খুলনা থেকে আগত ওমর ফারুক নামের এক অভিভাবক বলেন, ‘আমরা সবসময় ছাত্রলীগের নেতিবাচক খবরই শুনতে পাই। কিন্তু এখানে যে ছাত্রলীগকে দেখছি সেটা সত্যিই অসাধারণ। ছাত্রলীগ তো এমনই হওয়া উচিৎ।’

জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষে প্রত্যেক একাডেমিক ভবন ও প্রবেশ ধারে তথ্য সহায়তা কেন্দ্র বসিয়েছে ছাত্রলীগ। এছাড়া জয় বাংলা বাইক সার্ভিস ও ১০ হাজার বোতল পানি দেয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, বিভিন্ন সময় চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, নিয়োগ বাণিজ্য, নারী নির্যাতন, সাধারণ শিক্ষার্থীদের মারধরসহ বিভিন্ন সংঘাতের কারণে খবরের শিরোনাম হয়ে থাকে ছাত্রলীগ। যার কারণে বিভিন্ন সভা সমাবেশে সংগঠনটির প্রতি বিরক্তিও প্রকাশ করেন আওয়ামী লীগেরই শীর্ষ নেতৃরা। তবে ঢাবি ছাত্রলীগের এসব ভালো উদ্যোগ ভবিষ্যতে ছাত্র রাজনীতিতে ইতিবাচক পরিবর্তন আসবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

ঢাবি,ছাত্রলীগ,সঞ্জিত চন্দ্র দাস