• বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট ২০১৮, ১ ভাদ্র ১৪২৫
  • ||

মালয়েশিয়ায় সাজেদা হত্যাকাণ্ডের তদন্ত শেষ পর্যায়, আসামীর ছবি প্রকাশ

প্রকাশ:  ২০ জুলাই ২০১৮, ১২:২৫
আহমাদুল কবির (মালয়েশিয়া)
প্রিন্ট

মালয়েশিয়ার বাংলাদেশি নারী আইনজীবিকে নৃশংসভাবে খুনের ঘটনা নিয়ে তোলপাড় চলছে দেশটিতে। সাজেদা-ই-বুলবুল নামের ওই আইনজীবীকে হত্যার ঘটনায় দেশটির পুলিশ প্রধান সন্দেহভাজন স্বামী শাহজাদা সাজুকে (৩৭) খুঁজছে। এর অংশ হিসেবে স্থানীয় সাংবাদিকদের সামনে সাজুর ছবি প্রকাশ করেছে মালয়েশিয়ান পুলিশ।

সাজেদা-ই-বুলবুল পটুয়াখালি সদরের পুরাতন আদালতপাড়ায় মো: আনিস হাওলাদারের কনিষ্ঠ কন্যা। সাজেদা প্রাইম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এল এল বি এবং এল এম পাশ করেন। বিয়ের পর ২০১৬ সালের ৩ ডিসেম্বর স্বামীর সঙ্গে মালেয়েশিয়া যান তিনি। সেখানে অন্য চেহারা দেখা যায় শাহজাদার। নিজে প্রতিষ্ঠিত হলেও তার স্ত্রীকে স্থায়ীভাবে বসবাস করার সুযোগ তৈরি করে দেয়নি। নিয়মিত নির্যাতনতো ছিলই।

এরই ধারাবাহিকতায় গত ৫ জুলাই সাজেদাকে (২৯) নৃশংশ কায়দায় হত্যা করে পাষন্ড স্বামী শাহজাদা। অপরাধ গোপন করতে স্ত্রীর লাশ টুকরো টুকরো করে কেটে লাগেজে ভরে সুংগাই কালাং (জালান ইপুহ) এলাকায় এক ডোবায় ফেলে গা ঢাকা দেয় সে। দুই লাগেজে ভর্তি সাজেদার আট টুকরা মৃতদেহ প্রথমে দেখতে পায় একজন ভবঘুরে ব্যক্তি। সে পুলিশে খবর দিলে এই নৃশংস ঘটনাটি সামনে আসে।

পুলিশ প্রধান দাতুক সেরি মাজলান বলেছেন, 'আমরা এই মুহূর্তে ঘটনার প্রধান আসামীকে খুঁজছি, যিনি আমাদের এই তদন্তে আলো ফেলতে পারবেন। আমাদের তদন্ত বলতে গেলে পুরোপুরি শেষ। এখন শুধু হত্যাকারীকে পাওয়ার অপেক্ষা। আমাদের কাছে তথ্য আছে, সে এখনও মালয়েশিয়া ছেড়ে যায়নি, সম্ভবত সে অন্য কোনো স্টেটে গিয়ে লুকিয়ে আছে।'

এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মালয়েশিয়াস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশনের সহযোগিতা চেয়েছেন মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা (সি আইডি) এ এসপি ফাইজাল বিন আব্দুল্লাহ। গত ১৭ জুলাই হাই কমিশনারের বরাবরে সহযোগিতা চেয়ে লিখিত আবেদন করেছেন।

আবেদনে সি আইডি কর্মকর্তা বলেন, তদন্তের স্বার্থে বাংলাদেশে সাজুর পরিবারের ০০৮৮০১৭৩০২৩৩৪২০ এই মোবাইল নম্বরে মালয়েশিয়া থেকে কারা কারা যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছে তাদের কললিষ্ট চেয়েছেন তিনি। সি আইডি কর্মকর্তার আবেদনের প্রেক্ষিতে দূতাবাস দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

ওএফ

হত্যা,লাশ