• বুধবার, ২০ জুন ২০১৮, ৬ আষাঢ় ১৪২৫
  • ||
শিরোনাম

র‌্যাব-পুলিশের অস্ত্র খেলাধুলার জন্য নয়

প্রকাশ:  ০৩ জুন ২০১৮, ০২:৪৫
মেজর আখতারুজ্জামান (অব
প্রিন্ট
‘মাদক দেশকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। মাদক ব্যবসায়ী ও সেবীদের জন্য শহর-গ্রাম কোথাও শান্তিতে বসবাস করা যাচ্ছে না। তাই তাদের বিরুদ্ধে র‌্যাবের অভিযানকে স্বাগত জানানোর বাইরে আর কিছু থাকতে পারে না।

 আর র‌্যাব-পুলিশকে সরকার যে পিস্তল ও গুলি দিয়েছে তা তো খেলাধুলা করার জন্য নয়। অভিযানে এর ব্যবহার হবেই।’ সাবেক সংসদ সদস্য মেজর আখতারুজ্জামান (অব.) গতকাল  এসব কথা বলেন।

 মেজর আখতারুজ্জামান আরও বলেন, সমাজকে ধ্বংস করে দেওয়া মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে সরকার যে অভিযান শুরু করেছে তাকে আমি স্বাগত জানাই। যুবসমাজকে বাঁচাতে এর কোনো বিকল্প নেই। মানুষের এই সমাজে মাদক ব্যবসায়ীদের মতো কীটদের বেঁচে থাকার অধিকার নেই। তাই আমি এ অভিযানে হওয়া ক্রসফায়ারের পক্ষে।

 তিনি বলেন, টেকনাফে আওয়ামী লীগের এক নেতা ও কাউন্সিলরের মৃত্যুর পর নানান কথা উঠেছে; যেন রূপবানের গল্প শুরু হয়েছে। এক ধরনের অডিও ক্যাসেট নিয়ে কল্পকাহিনী শুরু হয়েছে। এই ক্যাসেট যে মিথ্যা-বানোয়াট নয়, তার কী প্রমাণ? সবাই মারা গেলেই যেন ভালো মানুষ হয়ে যায়। 

তিনি বলেন, টেকনাফের এ ঘটনাকে যদি বড় করে দেখে পুরো অভিযানটাকেই প্রশ্নবিদ্ধ করে বন্ধ করে দেওয়া হয়— তাহলে বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম হবে মাদকাসক্ত প্রজন্ম। এটা নিশ্চয়ই আমরা চাই না। তাই মাদকের বিরুদ্ধে র‌্যাবের এ অভিযানকে সরকার, রাজনীতিবিদ, মিডিয়াসহ সবারই সমর্থন করা উচিত। টেকনাফের এ ঘটনাকে বড় করে না দেখে অন্যান্য সফলতাকেও গণ্য করতে হবে। 

আখতারুজ্জামান বলেন, যুক্তরাষ্ট্র, ফিলিপাইন, আফগানিস্তান, ভারতসহ সব দেশেই ক্রসফায়ার হয়। বাংলাদেশও এই গ্রহের বাইরে কোনো দেশ নয়, এখানেও ক্রসফায়ার হবে। এটাই স্বাভাবিক। তাই সমালোচনায় কান না দিয়ে সরকার ও র‌্যাবের প্রয়োজন মাদকবিরোধী অভিযানের দিকে আরও বেশি মনোযোগী হওয়া। লোক দেখানো অভিযান না চালিয়ে তালিকা দেখে সচেতনভাবে অভিযান চালানো। এটা শুধু এই সরকার নয়, বিএনপি সরকার ক্ষমতায় এলেও আমি তাদের এ অনুরোধই করব। 

বিএনপির রাজনীতিতে নানান সময় আলোচিত-সমালোচিত মেজর আখতারুজ্জামান (অব.) বলেন, তবে সরকার র‌্যাবকে রাজনীতি দমনে যেভাবে ব্যবহার করেছে, তা ন্যক্কারজনক। রাজনীতি ও রাজনীতিবিদদের দমনে র‌্যাবের যে ভূমিকা তা অত্যন্ত নিন্দনীয়। 

আমি র‌্যাবকে আহ্বান জানাব, আপনারা মাদকের বিরুদ্ধে এখন যে অভিযান চালাচ্ছেন, অতীতে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে যেমন অভিযান চালিয়েছেন— তেমনই জনগণের কল্যাণে কাজ করুন। কারও হাতিয়ার হিসেবে কাজ না করে জনগণের ভালোবাসার প্রতিদান হিসেবে মাদকমুক্ত দেশ গড়তে কাজ করুন।

সূত্রঃ বাংলাদেশ প্রতিদিন