• বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ৮ ১৪২৫
  • ||
  • আর্কাইভ

শ্বাসকস্ট হয়, সুস্থ থাকাটা সব কিছুর চেয়ে জরুরিঃ দীপংকর দীপন

প্রকাশ:  ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৩:৪৯
বিনোদন ডেস্ক
প্রিন্ট

ঢাকা অ্যাটাকের নেট আয় কিভাবে ৯ কোটি, বাড়তি ব্যয় সিনেমায় না হয়ে কোথায় হয় এবং নতুন সিনেমায় প্রসেনজিত প্রসঙ্গ...

(কাল ৮ তারিখ, ভাল থেকো প্রিয় মাতৃভুমি আমার। বাংলাদেশের সিনেমা নিয়ে যারা আগ্রহী নন, তারা এই বিশাল লেখা পড়ে সময় নস্ট করবেন না প্লীজ।)

ভেবেছিলাম বিষয়টা নিয়ে লিখব না। ঢাকা অ্যাটাক কি ব্লকবাস্টার ছবি, সুপারহিট ছবি, হিট ছবি নাকি ফ্লপ ছবি, কতটুকু সত্যবাদীতা ছিল ঢাকা অ্যাটাকের আয় সম্পরকিত তথ্যে, সেগুলো নিয়ে কিছু প্রশ্ন তৈরী হয়েছে। তার পরেও ভেবেছিলাম থাক কিছু বলব না এ নিয়ে। অতীত নিয়ে কথা বলব, নাকি ভবিষ্যত নিয়ে কাজ করবো। পরেরটাই বেশি জরুরী মনে হয়েছির। চরম ব্যস্ততায় দিন চলছে। এর মধ্যে এক খুব কাছের সম্ভাবনাময় ছোট ভাইয়ের ফোন, হোয়াটস্যাপে, বলল, “ দাদা যদি আপনার জন্য না ও লাগে প্লিজ কিছু আমাদের জন্য হলেও বলেন। যেই ১৫-৩৫ বছরের নতুন সিনেমা দর্শকদের পুঁজি করে - বিশ্বাস করে ঢাকা অ্যাটাক বানিয়েছিলেন বলে ইন্টারভিউএ বলেছিলেন, যারা ঢাকা অ্যাটাককে ৪ মাস ধরে সিনেমা হলে চালাল, এখন ও চালাচ্ছে। যাদের আগ্রহের কারণে, ভালবাসার কারণে, লেখালেখির কারণে বিশ্বের ১৭ টি দেশের ৫১টি শহরের মানুষ ঢাকা অ্যাটাক দেখতে চেয়েছে। এখন ও দেখতে চাইছে। টিভি রাইটস বিক্রি হয়েছে একটা বড় অঙ্কের টাকা দিয়ে এবং আরেকটি চ্যানেল রিলিজে পর তার ডাবল মূল্য অফার করেছে। অক্টোবর থেকে বাংলাদেশকে মাতিয়ে রেছেখে যে সিনেমা, গত বছর ফেসবুকে যে ৫টি বিষয় নিয়ে ফেসবুকে বেশি কথা হয়ে- তার মধ্যে একটি ঢাকা অ্যাটাক। পত্র-প্রত্রিকা হলের বরাত দিয়ে নিউজ করেছে- ঈদ ছাড়াই ঈদের সেল। সেই ছবির প্রডিউসারের কিভাবে দেড় কোটি টাকা লস হয়? আপনি কি অনেক বেশি খরচ করে ফেলেছিলেন?

যখন একথা বলে, মনে মনে হাসি। মনে পড়ে যায় কোলকাতায় আমার আর ফয়সালের বাথরুম পরিষ্কার করার দিনগুলোর কথা। পোস্ট প্রোডাকশনের কারণে তিন মাস কোলকাতাতে থাকতে হয়েছিল। কারণ এতে গ্রাফিক্সের কাজ ছিল প্রচুর। প্রায় ২৩ মিনিটের মত ২৭০০ ফ্রেম। কোলকাতায় ২জন থাকতে গেলে ৩,০০০ টাকার কমে কোন নিরাপদ সামাজিক হোটেল পাওয়া যায় না। ৯০ দিনে প্রায় ২,৭০,০০০ টাকা লাগবে। এটা বাঁচানোর জন্য আমরা মাসিক ১৫,০০০ টাকা দিয়ে অখ্যাত জায়গায় একটা ২ কামরার বাড়ি ভাড়া নিয়েছিলাম। সে বাড়ির অবস্থা ছিল সেইরকম, এসি ছিল, সেই এসির ৫ জায়গা দিয়ে জল পড়ত এসি চলত না। আরেকটি ঘরে কোন জানালা নেই, প্রচন্ড গরম। যেখানে ফয়সাল ঘুমাত। বাথরুমে পানি আটকে যেত। আমি আর ফয়সাল মিলে বিগ বাজার থেকে বাথরুম পরিষ্কার করার জিনিসপত্র নিয়ে এসে বাথরুম পরিষ্কার করতাম। যেটা আমরা কখনো এখানে করিনি। কয়েকবার আমার বউ এসে কাপড়-চোপড় বিছানা-পত্র পরিষ্কার করে দিয়ে গেছে। হোটেলর মত সারভিস কোথায়? আমার টিম সবসময় বাসে করে আসত। ফয়সাল একবার আমাকে না বলে প্লেনের টিকিট কেটে ছিল বলে রাগে আমি ওর সাথে ৭ দিন কথা বলিনি। ভাই খরচটা বাড়লে কিন্তু প্রোডাকশন কস্টে গিয়েই পড়বে। আমিও ২/৩ বার বাসে এসেছিলাম ওদের সাহস ডেওয়ার জন্য কিন্তু ব্যাকপেইনে কাহিল হয়ে তিনদিন বিছানায় পড়ে থাকতে হয়েছিল। অরুপকে কথ কষ্ট দিয়েছি টাকার জন্য। বারবারই আমাকে বলা হয়েছে নাটকের নির্ম্তারা নাকি বাজেট বেশি খরচ করে ফেলে। আমাদের লক্ষ্য ছিল ঢাকা অ্যাটাকে সেটা যেন না , আমাদের কষ্ট হয়, হোক, এমনকি সিনেমার ক্ষতি হয় হোক। আমার প্রডিউসার বাঁচলে আমি পরের ছবি করার সুযোগ পাব। প্রডিউসার আমার কাছে সিনেমার চেয়েও গুরুত্বপূর্ন।

তাই ঢাকা অ্যাটাকের লাস্ট পার্ট শ্যুট করেছিলাম অনেকটা শস্তা সিরিয়াল শ্যুট করার স্টাইলে। সস্তা সিরিয়াল গুলো যেমন একই দিনে আর্টিস্ট টানাটানি করে তিন ক্যামেরায় তিনটা জোন করে কাজ হয়। একই আর্টিস্টদের টানাটানি করে ঢাকা অ্যাটাকের অনেক দিনের শ্যুট এভাবে হয়েছে, খরচ কমানোর জন্য। ঢাকা অ্যাটাকের অনেক সিনের শ্যুট হয়েছে 5D ক্যামেরা দিয়ে। মানে সিনেমার যে বেসিক শ্যুটের একটা নিয়ম আছে, সেটাকে সম্পূর্ণ ভেঙ্গে হাজারটা মিস ম্যানেজমেন্টের মধ্যেও যেন শিডিউলড ডেটে সঠিক সময়ে, কোয়ালিটি নস্ট না করে সিনেমাটা শেষ করার জন্য জান-প্রাণ দিয়ে কাজ করেছিলাম। আমাদের এই কাজের প্রেশার, কম্প্রোমাইজ করার মানসিকতা এবং আমাদের এরকম ওয়ার্কিং অ্যাটিটিউড দেখে কোন ডি ও পি আমার সাথে পরের লটে কাজ করতে রাজী হয়নি। ডিওপি বদলাতে হয়েছে। সৌভিক নিয়ে লাস্ট লটটা কুত্তার মত খেটে আমরা শেষ করি। আমরা ঢাকা অ্যাটাকটা নির্দিষ্ট ডেটের তিন্দিন আগে শ্যুট শেষ করি। এন্ড গানটা খুবই অন্যরকম ভাবে শ্যুট করার প্লান ছিল। শুভ, মাহি, নওশাবা, এ বি এম সুমন, শতাব্দী সবাইকে নিয়ে। ডেট ও নিয়ে রেখেছিলাম। করতে পারিনি। যেন বাজেটটা ক্রস না করে। সেটা বাজেট ক্রস করে কিভাবে এত টাকা হয়ে গেল? এতটাকা খরচ করতে পারলে কি আমাকে এত কষ্ট করতে হয়, কালারিস্ট এর কাছে ছোট হতে হয়, মাল্টিকালার, মাল্টিকোয়ালিটি ফুটেজে জন্য। সে বিষয়টা নিয়েও আমি কখনো কিছু বলতে চাইনি। তারা আমার প্রথম ছবির প্রডিউসার। সারা জীবন আমি তাদের কে মাথায় করে রাখব। যতদিন পর্যন্ত আমার কাছে শেষ শক্তিটুকু আছে, যে ভাবে পারি তাদের কাজে আসবো । তাদের সাথে কাজ করা হোক আর না হোক। আমার সবটুকু দিয়ে আমি তাদেরকে সার্ভ করে যাব সবসময় যদি তারা চায়। একটা নতুন ঘোড়ার উপর বাজি ধরেছিল তারা। তাদের সবকিছু আমি মাথা নত করে নিলাম। কিন্তু কথা বলা দরকার আসলে বাজার নিয়ে। ওটা ভীষন জরুরী। ঐ যে সবার স্বার্থের বিষয় তাই ক্ষমা বা পাশ কাটিয়ে যাওয়া উচিত না।

বিশাল সম্ভাবনাময় বাংলাদেশের সিনেমার বাজার- যেটাকে অনুধাবন করতে পেরে কোলকাতার মমতা ব্যনার্জী পর্যন্ত বড় কালচারাল টিম পাঠিয়েছিল সরাসরি বাজারটা খুলে দেওয়ার জন্য চেষ্টা করতে। অনেক বার এই ব্যাপারে কথা হয়েছে। সেই বাজারটাকে, আমাদের সম্ভাবনাময় বাজারটাকে কেন আমরা নিজেরা ছোট করছি? ইন্টারন্যশনাল সিনেমার যেই বিপনন সিস্টেম আছে, শেয়ারিং সিস্টেম আছে , সে হিসাবে ঢাকা অ্যাটাকের প্রডিউসারের যেখানে ৭-৮ কোটি টাকা থাকার কথা, টিভি রাইটস এবং ইন্টারন্যাশনাল দিয়ে আরও বেশি। সেখানে সে কেন ২ কোটি টাকা পাবে? তাহলে বাকি টাকাটা কোন সিস্টেমে খায়? সিস্টেমের কোন ভূতে খায়? এগুলো ফোকাস হওয়া উচিত। ঢাকা অ্যাটাককে ফ্লপ ছবি বানিয়ে কি লাভ হবে, তরুন সমাজ অংক দিয়ে ফেসবুকে বুঝিয়ে দিচ্ছে না। ঢাকা অ্যাটাকের যেই ক্রেইজ তৈরী হয়েছিল, সেই ক্রেইজকে ছোট করলে আমাদের কোন উপকার হবে না। বরঞ্চ এই ক্রেইজটা আমদের সাহসী হতে শেখায়। আপনার বাড়িতে যদি একটা খুব মিষ্টি একটা আম গাছ থাকে সেই আম গাছটির আম যদি পোকার কারণে পাকতে না পারে, আপনি কি করবেন তখন? আম পাকছে না দেখে রাগ করে গাছটি কেটে ফেলবেন? না পোকা দূর করবেন? কোনটা বুদ্ধিমানের কাজ? আপনারাই ভাবুন। বিষয়টা নিয়ে লেখা দরকার। অনেক জায়গাতে ঢাকা অ্যাটাক অনেক ভাবে ইনকাম করেছে। স্যাটেলাইট রাইটস, অনলাইন রাইটও, ইন্টারন্যাশনাল ডিসট্রিবিউশন, স্পনসর , আরো কত কি? ঢাকা অ্যাটাকের পোস্টারের নিচে যে অসংখ্য লোগো দেওয়া আছে ওগুলো নিশ্চয়ই পোস্টারের সৌন্দরয বাড়ানোর জন্য দেয়া হয়নি। এরপর কিন্তু বুঝতে পারা দরকার, কিভাবে নেট সেল ৯ কোটি হয়, ভ্রু কুচকানো মানুষ দের এতে হবে না, তাদের জন্নই দেরিটা হচ্ছে, লেখাটা লিখতে অনেক তথ্য, উপাত্ত, অনেক মার্কেট সেল রিপোর্ট অনেক কিছু দরকার। কিছু হিসাব দরকার। কিন্তু এটার জন্য যে সময়টুকু দরকার সে সময়টুকু পাচ্ছিনা। সময়টা কেন পাচ্ছি না তা বলি। একটা আশার গল্প শোনা যাবে হয়ত। দিন শেষে আমরা তো আশার গল্পই শুনে বেঁচে থাকি।

যে গল্পটা প্রসেনজিত চ্যাটারজিকে কাস্ট করতে এসেছি, সেটার নাম যেহেতু ঠিক হয়নি, তাই আপাতত ধরি নাম প্রজেক্ট নায়িকা। সেই গল্পটা আমাদের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ গল্প। ঢাকা অ্যাটাকের রিলিজের দিনে সাতেক পরেই ১৫ই অক্টোবার থেকে ঢাকা অ্যাটাকের সাফল্য উদযাপন করার পরিবর্তে আমরা কাজে ডুবে গিয়েছিলাম। আমি, আসাদ জামান, শাহজাহান সৌরভ, হাসনাত বিন মতিন ৪ জন মিলে। আমাদের সুপারভাইজ করত জুয়েল ভাই এবং হায়দার ভাই। আমরা গল্পটা ডেভেলপমেন্টের কাজ শুরু করি। প্রথমে ডিজাইনটা করি। একটা আপাদমস্তক বানিজ্যিক ( প্রচলিত ধারণা থেকে) গল্পকে ইন্টেলিজেন্টলি করে বলা আমাদের এই মুভির চ্যালেঞ্জ। সককালীন ধারায় একটা সেমি মাসালা গল্পকে বলতে চেয়েছি- যে ধারায় এখন ড্যারেন আরফোনস্কি, টারানটিনো, চ্যান পাক উক, টিম মিলার, নোলান, বং জন হু, অনরুরাগ কাশ্যপ রা গল্প দেখাচ্ছেন- সেই ধারাটাকে বাংলায় মেশালে কি হয়, তার একটা চেস্টা, কিন্তু বানিজ্যিক সফলতা সবার আগে। ৯০ থেকে ২০১৭ এর হার্ড রকের একটা জার্নি যে গল্পে পাওয়া যাবে। যে গল্পের ২য় নায়কের নাম রাফায়েল স্যানটি। ডিজাইন হয়ে গেলে শুরু হয় লেখার কাজ। সি-নে-মাসের চারজন মিলেই শুরু করেছিলাম। তারপরে একটা পর্যায়ের পরে অর্ক মোস্তফা জয়েন্ট করে, অর্ক আমার দীর্ঘ ১০ বছরের কাজের সাথী। পরে স্ক্রিপ্টটা ফাইনালি অর্ক এবং আমি মিলে লেখে ফেলি। ২০১২ সালে গল্পটা প্রথম মাথায় আসে যখন এসএটিভির রোকেয়া আপা একটা টেলিফিল্ম চেয়েছিল। গল্পটা লিখে ফেলার পর আর এসএটিভিকে দেইনি। মনে হয়েছিল এটা সিনেমার জন্য জন্ম হয়েছে, সেবার এস এ টিভিতে কাজ করা হয়নি, তাও গল্পটা রেখে দেই সিনেমার জন্য কিন্তু তখন জানতামই না সিনেমা বানাতে পারব কি পারব না। ঢাকা অ্যাটাকের সেকেন্ড লটের শ্যুটের আগেই আসাদ জামানকে পেমেন্ট করেছিলাম চিত্রনাট্যের জন্য। ও তখন কাজ ও করেছিল। ২১০১৪ সালে। এইযে এরকম ৫ বছর ধরে ছিলাম আমরা গল্পটার সাথে। এই গল্পটাতে বুম্বাদার যুক্ত হওয়ার খুব দরকার ছিল। ডিরেক্টর হিসেবে ক্যরেক্টারের ডিমান্ড হিসেবে আমি যা বুঝি সেই জায়গাটার কারণে। এখানে একটি ক্যরেক্টারকে দুটি রোল প্লে করতে হবে-

>একটিতে থাকবে ২৭/২৮ বছর বয়সের আন্ডারগ্রাউন্ড হার্ডরক ব্যান্ডের সাথে যুক্ত একটি বখে যাওয়া ছেলে।

>অন্যটি ৫০ বছর বয়স্ক ইতালিতে চূড়ান্ত সফল একজন ব্যবসায়ী, যে একজন উদাসীন মাফিয়া এবং একজন কবি।

>দুটো ক্যারেক্টারই চোস্ত ইংরেজি বলে, ভাল বাংলা বলতে পারেনা। আমার ও আমাদের টিমের জানার জায়গা থেকে এপাশে বুম্বাদা আর ওপাশে আমিরখান ছাড়া কাউকে পাইনি। আমির খানের কাছে পৌছাতে পারবো না, আর উনি বাংলা পারেনও না। এজন্য ভরসা ছিল বুম্বাদা। বুম্বাদা পছন্দ করে কি না করে, পছন্দ না করলে যেভাবে গল্পটা এতদিন ধরে ভেবেছে সেভাবে করতে পারবো না। এই গল্পটার ফরমেটটা চেঞ্জ করা আমাদের জন্য খুব মনোকষ্টের হবে এবং এতে ভয়ও ছিল সেটা হয়তো আমাদের পক্ষে সম্ভব হবেনা। আমার, অর্কের, হাসানাতের অনেক কষ্টে ফসল এই চিত্রনাট্য। তাই তৈরী হচ্ছিলাম বুম্বাদাকে গল্পটা শোনানোর জন্য। কারণ যারা তাকে চেনে তারা জানে, গল্পে পছন্দ না হলে তাকে দিয়ে কেউ কোন কাজ করাতে পারেনা, কোন অনুরোধ বা চাপেই।

এর মধ্যে সায়কের বিয়ে। ও আমাদের ঢাকা অ্যাটাকের ইপি ছিল। বেশ রাতে কোলকাতা থেকে রওয়ানা করেছি, বেশ দুরে। যেতে যেতেই রাত সাড়ে এগারটা বারোটা। খুব ইচ্ছে করছিল বিয়েটা পুরো থাকতে, কিন্তু পারিনি। কারণ দিন পরেই আমার সাথে বুম্বাদার পিচিং ছিল। অনেক কাজ বাকী ছিল, গল্পে একটা খটতা তখনও যায়নি। হাসানাতের ভাষায় মাস্টারস্ট্রোক নাকি আমার কাছ থেকে লাগবে, যে নাকি সবসময় লাস্ট মোমেন্টে এমনি এমনি আসে। গল্পে সেটারও অভাব বোধ করছিলাম। পিচিং নিয়ে একটা আমার মিনিমাম ট্রেনিং হয়েছিল ২০০৭ এ বার্লিন ফিল্ম ফেস্টিভাল এ, একজন খুব ভাল পিচ এক্সপার্ট এক দিনের একটা ট্রেনিং করিয়েছিল আমাদের সাতজনকে। যে ৭ জন তাদের প্রজেক্ট দিয়ে ৪২০০ জনের মধ্যে টিকেছিল। সেই জ্ঞান আর তো পিচটা ঝালাই করে নেওয়ার জন্য গাড়িতে যার সাথে আসছিলাম, সে আমার নতুন পরিচিত হবার পরেও তাকে গল্পটা শেয়ার শুরু করি। গল্পটা যখন শেষ হয় তখন শিয়ালদাহ পৌঁছে গেছি। আমরা প্রাইভেট কারে করে আসছিলাম। গল্পটা শোনার পরে আমার প্রতি তার ইম্প্রেশন চেঞ্জ হয়ে গেল। সে বলল যে, ভাই একটু বসেন। আমার পক্ষ থেকে একটা চা সিগারেট খান-এটা আপনার গল্পটার জন্য। এই ধরণের কোন গল্প আমি শুনিনি কখনো বাংলা ভাষার কোন ছবিতে। পরের পরের দিন বুম্বাদার সাথে শেয়ার করা হল গল্পটা। গল্পটা শোনার ২০ মিনিটের মাথায় বুম্বাদা ফোনটা সাইলেন্ট করে দিলেন, রুমে কাউকে ঢুকতে মানা করে দিলেন এবং অফিসে যে গেস্টরা ছিল বলে দিলেন যে আজ দেখা করবেন না, পরে ফোনে যোগাযোগ করবেন। তারপরে আমাকে বললেন এবার বলতে থাকেন গল্পটা। পুরোটা শেষ করার পরে বললেন যে ছবিটা আমি করছি। এক দুই কথায় বললেন, সেই যে আপনার ১৫-৩৫ বছরের আধুনিক স্মার্ট বাংলা ছবির দর্শক, তারা পছন্দ করবে তো এই গল্প? বিনয়ে বলি, বুম্বাদা যদি এটা বাংলাদেশের মত করে বানাতে পারি তাহলে তারা পছন্দ করবে। কলকাতার মত করে বানালে নেবে না। এক ফাঁকে ডু অর ডাই নিয়ে কথা হচ্ছিল। বুম্বাদা হাসতে হাসতে বললেন, ডু অর ডাই তো অসাধারণ প্রোজেক্ট দীপন, এখানে কোন ভারতীয় অভিনেতা নেয়ার কোন স্কোপ নেই? আমি আরো বিনীত হয়ে বললাম যে, “সরি বুম্বাদা। এটা আমাদের মুক্তিযুদ্ধের গল্প, ২৩-২৭ বছর বয়সী নয়জন দূর্দান্ত সাহসী মুক্তিযোদ্ধার গল্প এবং এটা একদম আমাদের দেশের পারফরমার নিয়ে করতে চাই। তার একদম আমাদের দেশে তৈরী আছে।“ বুম্বাদা খুব এপ্রিশিয়েট করল। ঠিক হলো ৯ তারিখে আবার বসতে হবে বাজেট হবে,শিডিউল হবে, প্লানিং হবে অন্যান্য কাস্টিং গুলো ঠিক হবে, অডিশন হবে, অনেক লম্বা সময় ধরে মিটিং চলবে সেদিন। সেই মিটিং এর প্রিপারেশন চলছে টানা। টানা হোটেলে। আমার তাই হয়, এতবার কোলকাতা এসেও আমি কোনদিন কখনই আমার খুব পছন্দের জায়গা টাটা বিরলা প্লানেটোরিয়াম যেতে পারিনি। ভিক্টোরিয়া দেখিনি, নন্দন দেখিনি, কিছু দেখিনি। ৯ তারিখের অনেক ব্যস্ততা, তার ফাঁকে ডু অর ডাই এর রিসার্চে ফাইল চেক করা।

৯ তারিখটা পার হোক, তারপর লিখবো ঢাকা অ্যাটাকের হিট ফ্লপ নিয়ে। ঢাকা অ্যাটাকের সফলতা, এটার আয়, এটার ব্যয়-অপব্যয়, এটার অসচ্ছতা, এটার প্রাপ্তি, প্রাপ্তির ঔচিত্যবোধ, প্রাপ্তির বাস্তবতা। সবকিছু লিখব। লিখতেই হবে। যারা ঢাকা অ্যাটাককে ছোট করতে গিয়ে নিজেদের বাজারের সম্ভাবনার জায়গাটা ছোট করছেন, তরুন প্রজম্নের শক্তিতে ছোট করছেন- তাদের জন্য খারাপ লাগে। এই শক্তি আপনারও শক্তি। সিনেমায় বাংলাদেশের বাজারের যে বিশাল সম্ভাবনা আছে, সেটাকে আমাদের ধারণ করতে হবে। লাভবান আমাদেরই হতে হবে অন্যদের নয়। বাংলাদেশে এখন যে সিনেমা হলের কাঠামো আছে সেই কাঠামোতেই দর্শকরা একটা ছবিকে ১০ কোটি টাকা পাইয়ে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে। শুধু অল্প কয়েকটা জায়গা ঠিক করতে হবে। দেশে যদি মাল্টিপ্লেক্স বাড়ে বাজারটা আরো বেড়ে যাবে। সেটা হলে , একবার ভাবতে পারেন কতটা কাজের ঝোক বেড়ে যাবে আমাদের নির্মাতাদের। আমাদের দেশে অসংখ্য মেধাবী নির্মাতা আছে তারা কীই না করতে পারে, এই বাজার এই টাকাগুলো পেলে। লিখবো তথ্য রিপোর্ট নিয়েই লিখবো। কয়েকটাদিন একটু সময় দিন, তথ্য গুলো জোগাড় করি আর প্রজেক্ট নায়িকার কাজ একটু এগিয়ে নেই। সিনেমার কাজই তো করছি, জানি আপনারা এই দেরী করাটা মাফ করে দেবেন। একটা কথা বলে শেষ করি। মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড় , আর সিনেমা তার বাজারের সমান বড়। আমাদের সিনেমাটা ছোট করে দেবেননা প্লীজ, যে সিস্টেম বা যারা ছোট করছে, তাদের বিরুদ্ধে দাড়ান। বাংলাদেশী সিনেমা দিন ফিরবেই। এই প্রজম্নের হাতেই ফিরবে।

সবাই ভাল থাকবেন। প্রার্থনা করি, দোয়া করবেন আমার জন্য, যেন আমি সুস্থ থাকতে পারি। ইদানীং শ্বাসকস্ট হয়, সুস্থ থাকাটা আমার কাছে সব কিছুর চেয়ে জরুরী।

ঢাকা এ্যাটাক সিনেমার পরিচালক দীপংকর দীপন এর ফেসবুক ওয়াল থেকে নেয়া।

/এটিএম ইমু