• রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৫
  • ||

হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন

প্রকাশ:  ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৭:১৮
হবিগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রিন্ট

সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ হবিগঞ্জ জেলা শাখার কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে এ কমিটির অনুমোদন দেন কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এস আই জাকির হোসাইন।অনুমোদিত কমিটিতে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি সাইদুর রহমানকে সভাপতি, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুর রহমান মাহিকে সাধারণ সম্পাদক ও বৃন্দাবন কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক আজিকে সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়।

একই সাথে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি কায়েছ চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান সানিকে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সম্পাদক এবং অলিউর রহমান শাহীনকে কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নির্বাচিত করা হয়। ১০ ফেব্রুয়ারি মাত্র দু’দিন সময় হাতে রেখে জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। সেই ঘোষণা অনুযায়ী ১০ ফেব্রুয়ারি জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্টিত হয়।

সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ও হবিগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এডঃ মোঃ আবু জাহির। সম্মেলনের উদ্ধোধন করেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ। প্রধান বক্তা ছিলেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন, হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক এডঃ আব্দুল মজিদ খান এমপিসহ জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।

এর আগে ২০১৪ সালের ৬ জুলাই হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্টিত হয়। এর দু’দিন পর ৮ জুলাই ডাঃ ইশতিয়াক রাজ চৌধুরীকে সভাপতি, সাইদুর রহমান, কায়েছ চৌধুরীকে সহ-সভাপতি, মাহবুবুর রহমান সানিকে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও মহিবুর রহমান মাহিকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ৬ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করে। ওই কমিটি গঠনের দীর্ঘ ৩ বছর পর গত বছরের ৩০ জুলাই ৫৩ জনকে সহ-সভাপতি করে ২১১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেয় কেন্দ্র। কিন্তু পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদনের মাত্র ৬ মাসের মধ্যে আবারো হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্টিত হয়। যা হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগে ইতিহাস সৃষ্টি করে।কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পাওয়া সাইদুর রহমান হবিগঞ্জ সদর উপজেলার রিচি গ্রামের মুসলিম সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান। সে বৃন্দাবন কলেজ ছাত্রলীগের রাজনীতি শুরু করে ২০১০ সালে জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মনোনীত হন।

পরবর্তীতে ২০১৪ সালের ৬ জুলাই অনুষ্টিত হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনের পর ৮ জুলাই ৬ সদস্যের কমিটিতে সহ-সভাপতি মনোনীত হন। অবশ্য ২০১৪ সালের সম্মেলনে সাইদুর রহমান জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদে তার প্রার্থীতা ঘোষণা করেন।পরে কেন্দ্রীয় কমিটি সমন্বয়ের মাধ্যমে সাইদুর রহমানকে সহ-সভাপতি পদে মনোনীত করে। সাইদুর রহমান ঢাকার ইষ্ট ওয়েষ্ট ইউনিভার্সিটিতে তাঁর শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।

এদিকে সাধারণ সম্পাদক পদে মনোনীত মহিবুর রহমান মাহি একেবারেই তৃণমূলের রাজনীতি থেকে শুরু করে বর্তমানে জেলা সাধারণ সম্পাদকের আসন অলঙ্কিত করেন। বানিয়াচং উপজেলার ১৩নং মন্দরী ইউনিয়নের উত্তর সাঙ্গর গ্রামের মুসলিম সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান। মহিবুর রহমান মাহি ১৩নং মন্দরী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে ছাত্রলীগের রাজনীতি শুরু করে। পরবর্তীতে সে ১৩নং মন্দরী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সম্মেলনের মাধ্যমে সভাপতি নির্বাচিত হয়ে দীর্ঘদিন ইউনিয়ন ছাত্রলীগকে সু-সংগঠিত করে সফলতার স্বাক্ষর রাখেন। মাঝে বানিয়াচং উপজেলা ও হবিগঞ্জ সরকারী বৃন্দাবন কলেজেও ছাত্রলীগের রাজনীতি করে। এরই মধ্যে লেখাপড়ার উদ্দেশ্যে হবিগঞ্জ শহরে বসবাস শুরু করে হবিগঞ্জেও ছাত্র রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হয়।

পরে ২০১০ সালে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের তৎকালীন সভাপতি মোস্তফা কামাল আজাদ রাসেল ও সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম রানার নেতৃত্বে পরিচালিত কমিটিতে দীর্ঘদিন প্রচার সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে। পরে ২০১৪ সালের জেলা সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক পদে তার প্রার্থীতা ঘোষণা করে। ওই সম্মেলনের পর কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ সমন্বয়ের মাধ্যমে মহিবুর রহমান মাহিকে সাংগঠনিক সম্পাদক মনোনীত করে। সর্বশেষ গত ১০ ফেব্রুয়ারী জেলা সম্মেলনে সভাপতি পদে নিজের প্রার্থীতা ঘোষণা করে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়। হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পাওয়া মহিবুর রহমান মাহি বর্তমানে মৌলভী বাজার সরকারী কলেজে তার শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।

apps