• রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৫
  • ||

নির্বাচন ২৩ ডিসেম্বর

প্রকাশ:  ০৮ নভেম্বর ২০১৮, ১৯:১০ | আপডেট : ০৮ নভেম্বর ২০১৮, ১৯:৩১
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

নির্বাচন নিয়ে রাজনৈতিক মতবিভেদ জিইয়ে রেখেই বৃহস্পতিবার (৮ নভেম্বর) সন্ধ্যায় তফসিল ঘোষণা করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট গ্রহণ হবে ২৩ ডিসেম্বর।

সিইসি জাতির উদ্দেশে রাখা এক ভাষণে এ তফসিল ঘোষণা করেন।

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ তারিখ ১৯ নভেম্বর সোমবার, বাছাই ২২ নভেম্বর বৃহস্পতিবার, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৯ নভেম্বর বৃহস্পতিবার। ভোটগ্রহণ করা হবে ২৩ ডিসেম্বর রোববার।

সংবিধানের অনুচ্ছেদ ১২৩ দফা (৩) উপদফা (ক)-এর বরাতে এবং নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত মোতাবেক একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময়সূচি ঘোষণা করেন সিইসি।

উল্লেখ্য, সংবিধান অনুযায়ী ২০১৯ সালের ২৮ জানুয়ারির মধ্যে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের বাধ্যবাধকতা আছে। একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে নিরপেক্ষ ও নির্দলীয় সরকারের দাবি জানিয়ে আসছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপি। এ নিয়ে সরকারের সঙ্গে তারা দুই দফা সংলাপ করলেও সমাধান মিলেনি। এ অবস্থায় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে আরও সংলাপ চেয়ে তফসিল ঘোষণা পেছানোর দাবি জানানো হয়েছিল। তবে নির্বাচন কমিশন সেই দাবিতে কান না দিয়ে তফসিল ঘোষণা করলো।

নির্বাচন কমিশন থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, জাতীয় সংসদের ৩০০টি আসনে এবার ভোট দেবেন ১০ কোটি ৪১ লাখ ৯০ হাজার ৪৮০ ভোটার। এরমধ্যে পুরুষ ৫ কোটি ২৫ লাখ ৪৭ হাজার ৩২৯ জন ও নারী ৫ কোটি ১৬ লাখ ৪৩ হাজার ১৫১ জন।

সম্ভাব্য ভোট কেন্দ্র ৪০ হাজার ১৯৯টি। এতে ভোট কক্ষ থাকবে ২ লাখ ৬ হাজারেরও বেশি। প্রতিটি কেন্দ্রে গড়ে ৫টি করে ভোট কক্ষ থাকে। ভোটের অন্তত ১৫দিন আগে কেন্দ্রের গেজেট প্রকাশ করবে ইসি।

বাংলাদেশে প্রথম থেকে দশম সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে যথাক্রমে- ১৯৭৩ সালের ৭ মার্চ, ১৯৭৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি, ১৯৮৬ সালের ৭ মে, ১৯৮৮ সালের ৩ মার্চ, ১৯৯১ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৬ সালের ১২ জুন, ২০০১ সালের ১ অক্টোবর, ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর ও ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি।

এনই

apps