• শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫
  • ||

এবার মঈনুলের বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গ্রেফতারি পরোয়ানা

প্রকাশ:  ২২ অক্টোবর ২০১৮, ১৮:০৫ | আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০১৮, ১৮:১৬
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রতিনিধি
প্রিন্ট

বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের টকশোতে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে কটূক্তি করায় ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেনের বিরুদ্ধে এবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দায়ের করা মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

সোমবার (২২ অক্টোবর) বিকেলে চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট-দ্বিতীয় আদালতের বিচারক ফারজানা আহমেদ মামলাটি আমলে নিয়ে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

সম্প্রতি ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন বেসরকারি একটি টেলিভিশন চ্যানেলের টকশো’তে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে ‘চরিত্রহীন’ বলেন। এর প্রতিবাদে সোমবার দুপুরে ইংরেজি দৈনিক অবজারভারের ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি আয়েশা আহমেদ লিজা বাদী হয়ে চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট-দ্বিতীয় আদালতে মামলাটি দায়ের করেন।

বাদী পক্ষের আইনজীবী সারোয়ার-ই-আলম সাংবাদিকদের জানান, ৫০০/৫০১ ধারায় মামলাটি দায়ের করা হয়েছে। তারা আদালতে মইনুল হোসেনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আবেদন করেছিলেন। বিকেলে বিচারক মামলাটি আমলে নিয়ে আসামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

প্রসঙ্গত, ১৬ অক্টোবর একাত্তর টেলিভিশনের টক শো ‘একাত্তরের জার্নাল’ এ ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনকে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টি প্রশ্ন করেন, ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে আপনি যে হিসেবে উপস্থিত থাকেন- আপনি বলেছেন আপনি নাগরিক হিসেবে উপস্থিত থাকেন। কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই বলছেন, আপনি জামায়াতের প্রতিনিধি হয়ে সেখানে উপস্থিত থাকেন।’

মাসুদা ভাট্টির এই প্রশ্নে রেগে গিয়ে মইনুল হোসেন বলেন, ‘আপনার দুঃসাহসের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ দিচ্ছি। আপনি চরিত্রহীন বলে আমি মনে করতে চাই। আমার সঙ্গে জামায়াতের কানেকশনের কোনো প্রশ্নই নেই। আপনি যে প্রশ্ন করেছেন তা আমার জন্য অত্যন্ত বিব্রতকর।’

পরে ওই বক্তব্যকে কেন্দ্র করে রোববার সকালে ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আসাদুজ্জামান নূরের আদালতে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টি বাদী হয়ে মামলা করেন। ওই মামলায় ব্যারিস্টার মইনুলের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

অপরদিকে মইনুলের একই বক্তব্যকে কেন্দ্র করে জামালপুর ও কুড়িগ্রাম ও কুমিল্লায় তার বিরুদ্ধে আরও তিনটি মানহানির মামলা করা হয়েছে।

তবে ঢাকা ও জামালপুরের মামলা হাইকোর্ট থেকে আগাম জামিন পান ব্যারিস্টার মইনুল। আর কুড়িগ্রামের মামলায় হাইকোর্টে জামিনের আবেদন করেছেন তিনি।এরই মধ্যে কুমিল্লায় ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তার বিরুদ্ধে একটি করে মামলা হয়েছিল।

/এসএফ

ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন,ব্রাহ্মণবাড়িয়া
apps