• বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮, ৩ কার্তিক ১৪২৫
  • ||

আফগানিস্তানের কাছেই এমন হার!

প্রকাশ:  ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০১:০০
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রিন্ট

এশিয়া কাপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে আফগানিস্তানের কাছে ১৩৬ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ। ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় ৪২.১ ওভারে মাত্র ১১৯ রানে গুটিয়ে গেছে মাশরাফিদের ইনিংস।

আফগানদের দেওয়া ২৫৬ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে বাংলাদেশের ইনিংস। দ্রুত দুই ওপেনারকে হারিয়ে বিপদে পড়ে যায় শুরুতে।

ওয়ানডে ক্যারিয়ারের প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমেছিলেন নাজমুল হোসেন শান্ত। যদিও অভিষেকটা রঙিন করতে পারলেন না এই ব্যাটসম্যান। ওপেনিংয়ে নেমে মাত্র ৭ রান করে ফিরে গেছেন তিনি প্যাভিলিয়নে। মুজিব উর রহমানের বলে বিগ শট খেলতে গিয়ে পয়েন্টে ধরা পড়েন তিনি আফতাব আলমের হাতে।

ওই ধাক্কা কাটার আগেই আবারও উইকেট হারায় বাংলাদেশ। শান্তর ক্যাচ ধরা আফতাব এবার উইকেট শিকারির ভূমিকায়। লিটনকে এলবিডাব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলে প্যাভিলিয়নে ফেরত পাঠান আফগান এই পেসার। ফিল্ড আম্পায়ার আউট দিলেও রিভিউ নিয়েছিলেন লিটন। তাতে অবশ্য কাজ হয়নি, রিভিউ হারের সঙ্গে ৬ রানে আউট হয়ে মাঠ ছাড়তে হয় তাকে।

দ্রুত দুই ওপেনারকে হারিয়ে বিপদে পড়ে বাংলাদেশ। সেই ধাক্কা কাটিয়ে ওঠার আগেই বিপদ আরও বাড়িয়ে যান মুমিনুল হক। প্রায় তিন বছর পর ওয়ানডে দলে সুযোগ পেয়েছেন এই বামহাতি ব্যাটসম্যান। ৫০ ওভারের ক্রিকেটে নিজের সামর্থ্য দেখানোর সুযোগটা এসেছে মুশফিকুর রহিমকে আফগানিস্তানের বিপক্ষে বিশ্রামে রাখায়। যদিও সুযোগটা মোটেও কাজে লাগাতে পারলেন না বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। মাত্র ৯ রান করে প্যাভিলিয়নে ফিরে গেছেন মুমিনুল। গুলবাদিন নাইবের বলে উইকেটরক্ষক মোহাম্মদ শাহজাদের গ্ল্যাভসবন্দী হন তিনি।

খানিক পর তার দেখানো পথে হাঁটেন মিঠুন। আগের ম্যাচে চমৎকার ব্যাটিংয়ে মুগ্ধতা ছড়ালেও আফগানিস্তানের বিপক্ষে ব্যর্থ হলেন এই ব্যাটসম্যান। মাত্র ২ রান করে তিনিও নাইবের শিকারে পরিণত হন।

এরপর জোড়া আঘাত হানেন রশিদ খান। সাকিবকে এলবিডব্লিউ ও মাহমুদুল্লাহকে বোল্ড করে প্যাভিলিয়নের পথ দেখান তিনি।

বিপর্যয়ে পড়ে যাওয়া বাংলাদেশের পরিণতি আরও এগিয়ে নেন মিরাজ। ৩৩.১ ওভারে রহমত শাহর বলে তালুবন্দী হন। পরে আর মাথা তুলে দাঁড়াননি কেউ। বিদায় নেন একে একে মাশরাফি, (০), আবু হায়দার (১) ও রুবেল হোসেন (০)। মাঝে মোসাদ্দেক হোসেন শুধু ২৬ রানে সংগ্রাম করে অপরাজিত থেকেছেন।

ব্যাট হাতে আলো ছড়ানোর পর বল হাতেও দুর্দান্ত ছিলেন রশিদ খান। জন্ম দিনে ৯ ওভারে ১৩ রান দিয়ে নেন দুই উইকেট। বাকি দুটি নেন গুলবাদিন মুজিব উর রহমান। একটি করে নেন রহমত শাহ, আফতাব আলম ও মোহাম্মদ নবি।

এর আগে, টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা আফগানিস্তান রশিদ খানের ঝড়ো হাফসেঞ্চুরির সঙ্গে গুলবাদিন নাইবের চমৎকার ব্যাটিংয়ে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে স্কোর বোর্ডে জমা করে ২৫৫ রান।

-একে

এশিয়া কাপ,আফগানিস্তান