• বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট ২০১৮, ১ ভাদ্র ১৪২৫
  • ||

‘আমাকে প্রধান বিচারপতি বানাতে চেয়েছিল আইএসআই’

প্রকাশ:  ২২ জুলাই ২০১৮, ১৯:৫৮
পূর্বপশ্চিম ডেস্ক
প্রিন্ট

প্রকাশ্যে পাকিস্তানের সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা ইন্টার সার্ভিসেস ইন্টেলিজেন্স (আইএসআই)-এর সমালোচনা করলেন ইসলামাবাদ হাই কোর্টের বিচারপতি শওকত সিদ্দিকী। তিনি রোববার রাওয়ালপিন্ডি বার এসোসিয়েশনে বক্তব্য দিচ্ছিলেন।

এ সময় তিনি অভিযোগ করেন, আইএসআই প্রচন্ড শক্তিশালী একটি গোয়েন্দা সংস্থা। তারা পাকিস্তানের প্রধান বিচারপতি ও অন্যদের ওপর প্রচন্ড চাপ সৃষ্টি করছে, যাতে বিভিন্ন মামলায় তাদের পছন্দ অনুযায়ী রায় দেয়া হয়। এর মধ্যে রয়েছে ক্ষমতাচ্যুত সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ। আইএসআই চায়, নওয়াজ শরীফ ও তার মেয়ে মরিয়ম যেন নির্বাচনের আগে জেল থেকে বেরুতে না পারে।

তিনি বলেন, আইএসআই পাকিস্তানের বিচার বিভাগ ও মিডিয়াকে নিয়ন্ত্রণ করছে। তার ভাষায়- এখন বিচার বিভাগ ও মিডিয়া চলে গেছে বন্দুকওয়ালাদের নিয়ন্ত্রণে। বিচার বিভাগ স্বাধীন নয়। এমন কি সেনাবাহিনী দিকনির্দেশনা দিচ্ছে মিডিয়াকে। তাই মিডিয়া সত্য কথা বলতে পারছে না। কারণ, তাদের ওপর রয়েছে চাপ এবং তাদেরও স্বার্থ রয়েছে।

ওই বিচারপতি আরো বলেন, আইএসআই প্রধান বিচারপতিকে বলেছে তিনি যেন এটা নিশ্চিত করেন যে, ২৫ শে জুলাইয়ের নির্বাচনের আগে যেন নওয়াজ শরীফ ও তার মেয়ে মরিয়ম নওয়াজ বাইরে বেরিয়ে আসতে না পারেন। এ ছাড়া অ্যাভেনফিল্ড মামলায় নওয়াজ শরীফ ও তার মেয়ের আপিলের শুনানিতে যে বেঞ্চ গঠন করা হবে তাতে যেন আমাকে রাখা না হয়। জবাবে আইএসআইকে প্রধান বিচারপতি বলেছেন, তিনি তাদের পছন্দমতোই বেঞ্চ গঠন করবেন। ওই বেঞ্চে নওয়াজের আপিল শুনানি হবে নির্বাচনের পরে।

উল্লেখ্য, নওয়াজ ও মরিয়ম যথাক্রমে ১০ ও সাত বছর করে জেল ভোগ করছেন। তাদেরকে রাখা হয়েছে রাওয়ালপিন্ডির আদিয়ালা জেলে। লন্ডন থেকে দেশে ফেরার পর পরই ১৩ই জুলাই তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়। বিচারপতি শওকত সিদ্দিকী আরো বলেন, আইএসআই আমাকেও প্রস্তাব দিয়েছিল। বলেছিল, আমি যদি তাদেরকে সহযোগিতা করতে রাজি হই তাহলে আমার বিরুদ্ধে একটি রেফারেন্স প্রত্যাহার করা হবে। আমাকে প্রধান বিচারপতি বানানোর টোপ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু আমি তা প্রত্যাখ্যান করেছি। কারণ, আমি আমার বিবেককে বিক্রি করার চেয়ে মারা যাওয়াকে ভাল মনে করি।

তিনি আরো বলেন, বিচার বিভাগ ও মিডিয়া হলো জনগণের বিবেক। যদি এর স্বাধীনতা কেড়ে নেয়া হয় তাহলে পাকিস্তান আর নিরপেক্ষ দেশ, স্বাধীন দেশ থাকবে না। ৭০ বছরের ইতিহাসে পাকিস্তানে স্বৈরশাসন চালিয়েছে সেনাবাহিনী। তারপর এখন পাকিস্তান একটি ইসলামি দেশও নয়। একটি গণতান্ত্রিক দেশও নয়।

আইএসআই,পাকিস্তান