• রবিবার, ২২ জুলাই ২০১৮, ৭ শ্রাবণ ১৪২৫
  • ||

কোটা আন্দোলনকারী ফারুকসহ তিনজন রিমান্ডে

প্রকাশ:  ১০ জুলাই ২০১৮, ১৫:৩৬ | আপডেট : ১০ জুলাই ২০১৮, ১৫:৪৯
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

কোটা সংস্কার আন্দোলনের সময় করা নাশকতার আলাদা দুই মামলায় কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক হাসানসহ তিনজনের দুই দিন করে চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

মঙ্গলবার (১০ জুলাই) ঢাকা মহানগর হাকিম আব্দুল্লাহ আল মাসুদ আসামিদের জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

রিমান্ডপ্রাপ্ত অপর ২ আসামি হলেন- মো. মশিউর রহমান ও জসিম উদ্দিন।

গত ৯ এপ্রিল দিবাগত রাত থেকে চারটা থেকে ১৬ ঘণ্টার মধ্যে শাহবাগ থানাধীন টিএসসি মোড় দিয়ে দোয়েল চত্তর মোড়ে পুলিশের কাজে বাধা ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও জনসাধারণের যানবাহন ভাঙচুরের পৃথক দুই মামলায় এই রিমান্ড দেয় আদালত। একই সঙ্গে রিমান্ডে নেওয়ার জন্য আবেদন করা অপর আসামি মো. তরিকুল ইসলামের পরীক্ষা থাকায় তার রিমান্ড আবেদনের শুনানি পিছিয়ে আগামী ১৭ জুলাই ধার্য করা হয়েছে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক বাহাউদ্দিন ফারুকী এ আসামিদের দুই মামলায় ৭ দিন করে ১৪ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন।

এর আগে এ আসামিদের মধ্যে মো. মশিউর রহমানকে গত ৩০ জুন এবং ফারুক, জসিম ও তরিকুলকে গত ২ জুলাই গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এরপর গত ১ ও ৩ জুলাই তাদের কারাগারে পাঠায় আদালত। একই মামলায় রাকিবুল হাসান ওরফে রাকিব, আলী হোসেন শেখ ওরফে আলী, মাসুদ আলম ওরফে মাসুদ ও আবু সাঈদ ফজলে রাব্বির ওরফে সিয়াম নামে ৪ জন গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে রয়েছেন।

এছাড়া কোটা সংস্কার নিয়ে ফেসবুক লাইভে প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে মানহানিকর বক্তব্য দেওয়ার অভিযোগে তথ্যপ্রযুক্তি আইনের একটি মামলায় কোটা সংস্কার আন্দোলনের যুগ্ম আহ্বায়ক মুহাম্মাদ রাশেদ খাঁন রিমান্ডে রয়েছেন।

উল্লেখ্য, সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ ব্যানারে কয়েক মাস ধরে আন্দোলন করে আসছে শিক্ষার্থীরা। গত ৮ এপ্রিল কোটা সংস্কার আন্দোলনের সময় আন্দোলনকারীরা রাস্তা বন্ধ করে টায়ার ও আসবাবপত্র জ্বালানোসহ নাশকতা এবং পুলিশকে মারধর ও কর্তব্য কাজে বাধা দেয়। এ ঘটনায় শাহবাগ থানার এসআই ভজন বিশ্বাস গত ১০ এপ্রিল মামলাটি দায়ের করে। একই ঘটনায় আরো দুটি মামলা করে পুলিশ।

অপরদিকে উপাচার্যের ভবন ভাঙচুরের ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র সিকিউরিটি অফিসার এসএম কামরুল আহসান বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের মামলা করেন। তবে কোনো মামলার এজাহারেই আসামির নাম উল্লেখ নেই। পরে আন্দোলনের মুখে প্রধানমন্ত্রী কোটা বাতিলের ঘোষণা দিলেও সরকারি প্রজ্ঞাপন জারি না হওয়ায় কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছে ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ।

কোটা আন্দোলন,আদালত,রিমান্ড