• শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮, ৯ আষাঢ় ১৪২৫
  • ||
শিরোনাম

চালের দাম তিনদিনে কেজিতে ৪ থেকে ৫ টাকা বেড়েছে

প্রকাশ:  ১১ জুন ২০১৮, ০০:৪১ | আপডেট : ১১ জুন ২০১৮, ০২:০২
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট
চলতি (২০১৮-১৯) অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে আমদানি করা চালে ২৮ শতাংশ শুল্ক পুনর্বহালের খবরে বাজারে বাড়তে শুরু করেছে  চালের দাম। মোটা চাল ও চিকন চাল উভয়ের দাম বেড়েছে। তবে চিকন চালের দাম মাত্র তিন দিনে  কেজিপ্রতি ৪ থেকে ৫ টাকা করে বেড়ে গেছে।

গত বছর  হাওড় অঞ্চলে বন্যায় ব্যাপক ফসলহানির পর বাজারে চালের দাম বেড়ে যাওয়ায় বাজার স্থিতিশীল রাখতে সাময়িকভাবে  চালের আমদানি শুল্ক তুলে দেওয়া হয়েছিল।বাজারে এখন যে চাল আছে, সেটি আগেই মজুদ করা, অর্থাৎ বিনা শুল্কে আমদানি করা। আর এবার বন্যা বা অতিবৃষ্টিতে ফসলহানির খবরও আসেনি। বাজেটে  শুল্ক পুনর্বহালের ঘোষণার পরই অযৌক্তিকভাবে মিল মালিকরা চালের দাম বস্তা-প্রতি দেড়শ টাকার মতো বাড়িয়ে দিয়েছেন।আর  খুচরা বাজারে এর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে।

রাজধানীর বড় পাইকারি চালের আড়ৎ কারওয়ান বাজারে গিয়ে দেখা গেলে নাজিরশাইল,  মিনিকেট, কালিজিরা ইত্যাদি চিকন চালের দাম কেজিতে চার থেকে পাঁচ টাকা করে বেড়েছে। স্বর্ণা, পাইজাম, লতা ও চায়নার মতো মোটা চালের দাম কেজি প্রতি দুই থেকে তিন টাকা বেড়ে গেছে। আড়তদার মোহাম্মদ আব্দুল আওয়াল তালুকদার বলছেন, "মিলারদের বস্তা-প্রতি চালের দাম বাড়ানোর প্রভাব এটি। শুল্ক বসাবে এইটা কেবল ঘোষণা হইছে। এখনো সংসদে পাশ হয় নাই। তার আগেই মিলাররা বস্তা-প্রতি এক থেকে দেড়শ টাকা করে বাড়িয়ে দিয়েছে।

আড়তদারেরা জানালেন, সামনে চালের দাম আরো বাড়বে। বিশেষ করে ঈদের পরে। কিন্তু চালের দাম বাড়লে যারা সবচাইতে বেশি ভুক্তভোগী হন সেই দরিদ্র মানুষের উপর এর প্রভাব এখনই পড়ছে।

২০১৭ সালে বন্যার পর চালের আমদানি শূল্প ২৮ থেকে কমিয়ে ১০ শতাংশ এবং পরে তাও তুলে নেয় সরকার। তবে গত ৭ জুন প্রস্তাবিত বাজেটে এই শুল্কহার আবার বহাল রাখার ঘোষণা দেন। আর এই বাজেট ঘোষণার দুইদিন আগে থেকেই চালের দাম বেড়েছে দুই থেকে তিন টাকা। অথচ গত এক মাস ধরে চালের দাম ছিল পড়তির দিকে।