• বুধবার, ২০ জুন ২০১৮, ৬ আষাঢ় ১৪২৫
  • ||
শিরোনাম

ফের হাতে পায়ে শেকড়, গোপনে হাসপাতাল ছাড়লেন বৃক্ষমানব

প্রকাশ:  ২৯ মে ২০১৮, ০১:৪৯ | আপডেট : ২৯ মে ২০১৮, ০৩:৫০
বিশেষ প্রতিনিধি
প্রিন্ট

'বৃক্ষমানব' হিসেবে পরিচতি পাওয়া বিরল রোগ ট্রি-ম্যান সিনড্রোমে আক্রান্ত খুলনার ভ্যানচালক আবুল বাজনদার কাউকে কিছু না জানিয়েই ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল (ডিএমসিএইচ ) ছেড়ে চলে গেছেন। দীর্ঘ আড়াই বছর ধরে বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি। গত শনিবার কাউকে কিছু না বলে বাইরে বেরিয়ে যান, আর ফিরে আসেননি।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, আবুল বাজনদার কাউকে কিছু না জানিয়েই চলে গেছে। সে যেতে চেয়েছিল, ওকে আমি বলেছি, তোমার অস্ত্রোপচার হয়েছে। আমরা আরও করবো। তার হাতে পায়ে আবারও অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নেওয়া আগেই তিনি চলে যান।

খুলনার পাইকগাছা উপজেলার সরল গ্রামের আবুল বাজনাদারে দেহের বিভিন্ন অংশে ১০ বছর বয়স  গাছের শিকড়ের মতো লম্বা মাংশপিন্ড গজাতে থাকে। এক সময় চলাচল পর্যন্ত বন্ধ হয়ে যায় তার। স্থানীয়পর্যায়ে নানা রকম চিকিৎসা করিয়ে সহায়-সম্বল ও সর্বশেষ বসতভিটা বিক্রি করে নিঃস্ব হয়ে পড়েন। একপর্যায়ে স্বজনরা তাকে ভ্যানে করে বাজারে বাজারে ভিক্ষা করে সংসারের খরচ ও স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা করাচ্ছিলেন।এমন পরিস্থিতিতে গণমাধ্যমে তাকে নিয়ে ধারাবাহিক সংবাদ প্রকাশের পর সরকারি তত্ত্বাবধানে ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর থেকে  চিকিৎসার জন্য আবুল বাজনাদারকে ভর্তি করা হয় ঢাকা মেডিক্যালের বার্ন ইউনিটে। ধাপে ধাপে তার হাতে ও পায়ে ২৫টি অস্ত্রোপচার হয়। হাত-পায়ের দুই-এক জায়গায় মূল শিকড় উঠিয়ে ফেললেও বাকি জায়গা দিয়ে আবারো আগের মতো করে শিকড় উঠেছে। 

অনুসন্ধানে জানা গেছে, আড়াই বছর চিকিৎসার পর সুস্থ না হওয়ায় অনেকটা হতাশ হয়েই পাইকগাছার নিজ বাড়িতে ফিরে গেছেন বৃক্ষমানব আবুল মজুমদার। ফোনে তার সঙ্গে যোগাযোগ করে কেন এভাবে চলে এলেনন জানতে চাইলে আবুল বাজানদা বলেন, ‘কী করবো? ওনারা বলছেন যে তোমার সমস্যার সমাধান হবে না। শিকড় আবারও উঠবে। এটা অস্ত্রোপচার করে ফেলে দেওয়ার, আবারও দেখা দিবে। অস্ত্রোপচার বার বার করতে হবে। এদিকে পরিবার-পরিজন ছেড়ে হাসপাতালে থাকতে আমার অতিষ্ঠ লাগছিল। তাই চিকিৎসকদের কাছে কিছুদিন আগে আমি ছুটি চাই, তখন চিকিৎসকরা জানান তোমার ছুটি নিতে হলে কাগজে সই দিতে হবে। কাগজে অনেক কিছু লেখা ছিল, কিছু না বুঝে কেন আমি সই দেব? তাই কাউকে না জানিয়ে শনিবার কিছু না জানিযে চুপচাপ আমি বাড়ি চলে আসি।

শুরুতে সুচিকিৎসা পেলেও পরে  চিকিৎসকরা  আর আগের মতো তার যত্ন নেয়নি জানিয়ে আবুল বাজনাদার  বলেন, শুরুতে চিকিৎসকরা বলেছেন, ভয়ের কিছু নেই। চিকিৎসার পর তুমি ভালো হয়ে যাবে। এখন বলছেন, তোমার রোগটি জেনেটিক। তোমার রোগটি ভালো হবে না। বার বার শিকড় গজাতেই থাকবে, বার বার অস্ত্রোপচার করা লাগবে। সারাজীবন ধরে চলবে এই রকম চিকিৎসা। তাদের কথায় আমার মন ভেঙে গেছে।আমি সুস্থ স্বাভাবিক মানুষ হিসেবে বেঁটে থাকতে চাই, সুচিকিৎসা চাই।

এ প্রসঙ্গে জানতে যোগাযোগ করা হলে বার্ন ইউনিটে সমন্বকারী ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, আবুল বাজনাদার দীর্ঘদিন হাসপাতালে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছিল। কিন্তু পঁচিশবার অস্ত্রোপচারের পরও দূর্ভাগ্যজনকভাবে তার দেহে আবারও শিকড় দেখা দেয়। কারণ তার রোগটি জেনেটিক। আবার অস্ত্রোপচারের জন্য তারিখও নির্ধারণ করা হয়েছিল। তার আগে বাজনদার কিছু দিন আগে হাসপাতাল থেকে বাড়ি যাওয়ার জন্য ছুটি চাইলে তাকে বলা হয় হাসপাতালের কিছু নিয়ম আছে সেই নিয়ম পালন করে তোমার যেতে হবে। যেমন ছুটির কাগজে তোমার সই দিতে হবে। কিন্তু বাজনাদার তা না করে কাউকে কিছু না জানিয়ে হাসপাতাল ছাড়ে।

ডিএমসিএইচের এই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক আরো বলেন, এ ধরনের রোগ বাংলাদেশে এই প্রথম এবং গোটা বিশ্বে বিরল। ২০০৭ ও ২০০৯ সালে মাত্র দু’জন এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার রেকর্ড রয়েছে। এদের একজন ইন্দোনেশিয়ায় ও অপরজন রোমানিয়ায়। এ ধরনের রোগীকে সাধারণত ‘বৃক্ষমানব’ বলা হয়ে থাকে। ২০১৫ সালে যে সময় আবুলকে ঢাকা মেডিক্যালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়, তার সপ্তাহখানেক আগে ইন্দোনেশিয়ায় বিরল এ রোগে আক্রান্ত কসওয়ারা দেদে নামে একজনের মৃত্যু হয়। ঠিক এমন পরিস্থিতিতে ঢাকা মেডিক্যালের (ডিএমসিএইচ) বার্ন ইউনিটের চিকিৎসকেরা বাজানদারের চিকিৎসায় বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের সমন্বয়ে গঠিত মেডিক্যাল বোর্ডের সফল অস্ত্রোপচারে আবুলের সুস্থতা গোটা চিকিৎসা জগতের বিরল সাফল্য এনে দিয়েছিল। কিন্তু এটি জেনেটিক হওয়ায় আবার বাজনাদার হাতে পায়ে শিকড় গজাচ্ছে। তবু আমরা হাল ছাড়িনি।

ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, আবুল বাজনদার ফিরে এলে অবশ্যই তার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা হবে। নতুন করে আমরা আক্রান্ত স্থঅনে অস্ত্রোপচার করবো।