• শুক্রবার, ১৭ আগস্ট ২০১৮, ২ ভাদ্র ১৪২৫
  • ||

ক্ষমা চাইলেন নরেন্দ্র মোদি

প্রকাশ:  ২৫ মে ২০১৮, ২১:২২
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রিন্ট

পশ্চিমবঙ্গের শান্তিনিকেতনে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে বক্তব্যকালে ক্ষমা চেয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বিশ্ববিদ্যালয়টিতে পানির স্বল্পতা রয়েছে জানতে পেরে উপস্থিত শিক্ষার্থীদের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করে তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য হিসেবে এর দায় তারই।

শুক্রবার সকালে বিশ্বভারতীর সমাবর্তনে যোগ দিতে শান্তিনিকেতন পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদি। অনুষ্ঠানে যোগ দেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও ।

বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য হিসেবে সমাবর্তন অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। শুরুতেই তিনি বাংলায় বলেন, ‘সকলকে আমার সশ্রদ্ধ প্রণাম। শান্তির নীড় কবিগুরুর শান্তিনিকেতনে আমি অত্যন্ত আনন্দ ও শান্তি অনুভব করছি।’

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে মোদি বলেন, ‘অনুষ্ঠানস্থলে আসার সময় আমি দেখলাম কয়েকজন শিক্ষার্থী পানির সরবরাহ কম বলে অভিযোগ করছিলো। বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য হিসেবে আমি পুরোপুরি এর দায় নিচ্ছি এবং আপনাদের কাছে ক্ষমা চাইছি।’

তিনি বলেন, ‘আমি অতিথি হিসেবে এখানে আসিনি। আমি এসেছি আচার্য হিসেবে। রবীন্দ্রনাথের শান্তিনিকেতনে এসে নিজেকে গর্বিত মনে হচ্ছে। গোটা বিশ্বে রবীন্দ্রনাথ নন্দিত। তিনিই প্রথম বিশ্বনাগরিক। এখনো তিনি বিশ্বনাগরিক হিসেবে রয়ে গেছেন।

মোদি বলেন, রবীন্দ্রনাথ গোটা বিশ্বকে আপন করে নিয়েছিলেন। আর তার সেই বিশ্ব ভাবনার ফসল হলো বিশ্বভারতী।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে উদ্ধৃত করে ভারতের প্রধানদন্ত্রী বলেন, ‘গুরুদেব বলতেন, ‘যদি তোমার ডাকে কেউ সাড়া না দেয় তবে একলা চলো। অবশ্য আমি বলতে চাই, আপনারা যদি একটি পদক্ষেপ নেন, তবে সরকার উন্নত ভারত গড়ার কাজে আপনাদের আরও চার ধাপ এগিয়ে নিয়ে যাবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘যখন মঞ্চের দিকে আসছিলাম, আমি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কথা স্মরণ করছিলাম। তিনি এখানে মহাত্মা গান্ধী এবং শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলতেন। আমি যখন তাজিকিস্তান গিয়েছিলাম, তখন সেখানে রবীন্দ্রনাথের একটি ভাস্কর্য উন্মোচনের সুযোগ পেয়েছিলাম। রবীন্দ্রনাথ বিশ্বাস করতেন, প্রত্যেক ব্যক্তিই জীবনে কিছু করার জন্য জন্মগ্রহণ করেছেন। সঠিক পথের নির্দেশনা দেওয়ার জন্য শিক্ষার্থীদের শিক্ষাপ্রদান খুব জরুরি, যেন তারা সঠিক গন্তব্যে পৌঁছাতে পারে। তিনি বলতেন, শিক্ষা কেবল স্কুল, কলেজেই দিতে হয় না, বরং বিভিন্ন উপায়েই শিক্ষা দেওয়া যায়।’ -একে

ক্ষমা,নরেন্দ্র মোদি,বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়