• বুধবার, ১৫ আগস্ট ২০১৮, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৫
  • ||

বিশ্বকাপে গ্রুপ ‘ডি’ তে নজর কাড়বে যারা

প্রকাশ:  ২৪ মে ২০১৮, ১২:১৩ | আপডেট : ২৪ মে ২০১৮, ১৩:১৪
সম্রাট কবির
প্রিন্ট

আর মাত্র কয়েক দিন এরপরই পর্দা উঠতে যাচ্ছে বিশ্বকাপ ফুটবলের। এবারের ফুটবল বিশ্বকাপ আয়োজনের দায়িত্ব পেয়েছে রাশিয়া। বিশ্বকাপকে সামনে রেখে রাশিয়ার সবকিছুই নতুন করে তৈরি করা হচ্ছে। রাশিয়ার ১১টি শহরে প্রস্তুত করা হয়েছে ১২টি স্টেডিয়াম, যার ছয়টিই তৈরি হয়েছে বিশ্ব কাপ আসর উপলক্ষ্যে! বিশ্বকাপে স্টেডিয়াম নির্মাণ ও পুনঃসংস্কারে ব্যয় করা হয়েছে প্রায় ৫.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার!

আাগামী ১৪ জুন পর্দা উঠবে ফুটবল বিশ্বকাপের। বিশ্বকাপকে কেন্দ্র করে ফুটবল প্রেমীদের মাঝে উত্তেজনা তুঙ্গে। খেলার দিন গননায় ব্যস্ত খেলোয়াড় থেকে শুরু করে ভক্ত-সমর্থকরা। বিশ্বকাপের একুশতম আসরে ৮ গ্রুপে অংশ নিচ্ছে ৩২টি দল। প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের আয়োজন করছে রাশিয়া। গ্রুপ ‘ডি’ তে রয়েছে আর্জেন্টিনা, আইসল্যান্ড, ক্রোয়েশিয়া, নাইজেরিয়া ।

লিওনেল মেসি, আর্জেন্টিনা : যে কোন দলের রক্ষণ ভাগের জন্য ভয়ঙ্কর হুমকি হিসেবে আবির্ভুত হতে পারেন লিওনেল মেসি। আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের হয়ে এখনো বড় কোন শিরোপা অর্জন করতে পারেননি বার্সেলোনার এই ফুটবল তারকা। তবে মেসির দিনে ফুটবল মাঠে মেসিকে দ্বারা সব সম্ভব।

পাওলো দিবালা, আর্জেন্টিনা : দু’টি বড় মৌসুম শেষ করে আসা এই তারকাকে ঘিরেই আর্জেন্টিনার আগামী দিনের স্বপ্ন। সবাই দিবালাকে মেসির বিকল্প হিসেবে ভাবতে শুরু করছেন।

সার্জিও এগুয়েইরো, আর্জেন্টিনা: হাঁটুর ইনজুরির কারণে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের এই ফুটবলার মৌসুমের শেষভাগে বিশ্রামে চলে গিয়েছিলেন। তবে অতিরিক্ত বিশ্রাম আশীর্বাদ হয়েও আসতে পারে।

গঞ্জালো হিগুইন, আর্জেন্টিনা : গেল বিশ্বকাপের ফাইনালে হিগুইনের গোল বাতিল হবার পর জার্মানির কাছে শিরোপা হাতছাড়া করে আর্জেন্টিনা।

মারিয়ো মানজুকিভিচ, ক্রোয়েশিয়া : জুভেন্টাসের হয়ে নিজের অবস্থান নিয়ে হতাশ থাকলেও, রাশিয়াতে অনেক বেশি মুক্ত থাকবেন।

ইভান রাকিটিচ, ক্রোয়েশিয়া: বার্সেলোন ছাড়া রাকিটিচের ব্যাপারে অনেক বেশি উদ্বিগ্ন লিওনেল মেসি। ফলে তাকে না ছাড়ার ব্যাপারে ক্লাবের প্রধানকে অনুরোধও করেন মেসি। দলের সর্বোচ্চ প্রশংসায় ছিলেন তিনি।

লুকা মড্রিচ, ক্রোয়েশিয়া : সম্প্রতি তিনি মেজর সকার লীগে (এমএলএস) যোগ দেয়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন। আসন্ন বিশ্বকাপে আলো ছড়ানো খেলোয়াড়দের মধ্যে যে তিনি এগিয়ে থাকবেন সে বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই।

নিকোলা কালিনিচ, ক্রোয়েশিয়া : নিকোলা কালিনিচ দলের মূল ফরোয়ার্ড হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। নিজে গোল করতে প্রতিপক্ষের গোলপোস্টের উপর ঝাঁপিয়ে পড়বেন । আবার ঠিক তেমনি তার ফিনিশিং, পাসিং দিয়ে দলের অন্যদের দিয়ে গোল করিয়ে থাকেন। লভ্রে কালিনিচ, ক্রোয়েশিয়া: লভ্রে কালিনিচ ক্রোয়েশিয়া দলের গোলকিপারের দায়িত্বে থাকবেন। গোলপোষ্টের অতন্দ্র প্রহরী হয়ে থাকবেন।

কারি আরনাসন, আইসল্যান্ড: কারি আরনাসন দলের আইসল্যান্ড ডিফেন্ডার । তার দিকে দল ও সমর্থকরা তাকিয়ে থাকবেন। দলের চাওয়ার প্রতিফলন দিতে পারবেন কিনা তা বিশ্বকাপের মূল মঞ্চেই দেখা যাবে।

ফ্রান্সিস উঝো, নাইজেরিয়া : ফ্রান্সিস উঝো সুপার ঈগলদের গোলকিপার। তিনি গোলপোষ্টে কতটা ঈগলের থাবা দিয়ে বিপক্ষ দলের বল আটকাতে পারেন তা দেখতে আর কয়েকটা দিন পরেই দেখা যাবে। মেসির গ্রুপেই আছেন তিনি।

আহমেদ মুসা, নাইজেরিয়া: নাইজেরিয়া দলের গোল করার মেশিন। নিজে যেমন গোলের জন্য ছুটে যান তেমনি দলের অন্যদের কেউ দিয়ে গোল করার জন্য নিখুঁত পাস ও ফিনিশিং করে থাকেন।

/এস কে