• বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট ২০১৮, ১ ভাদ্র ১৪২৫
  • ||

যে কারণে সৌদি থেকে দলে দলে দেশে ফিরছেন নারী শ্রমিকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ:  ২০ মে ২০১৮, ২৩:৫০ | আপডেট : ২১ মে ২০১৮, ০০:৫৬
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

বাংলাদেশের নারী শ্রমিকরা আর্থিক স্বচ্ছলতার আশায় কাজ করতে সৌদি আরবে গিয়ে প্রতারিত হচ্ছেন। শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন শিকার হওয়ার পাশাপাশি পাচ্ছেন না বেতন। নানারকম হেনস্থার শিকার হয়ে সব হারিয়ে শূন্য হাতে দেশে ফিরছেন। নিরাপদ অভিবাসন নিয়ে কাজ করে বাংলাদেশের এমন একটি প্রতিষ্ঠান জানিয়েছে সৌদি আরব থেকে নারী শ্রমিকদের ফিরে আসার সংখ্যা সম্প্রতি বেড়ে গেছে।

সৌদি আরব থেকে গত শনিবার ৬৬ জন নারী গৃহকর্মী তাদের চুক্তি শেষ হবার আগেই দেশে ফিরেছেন।বেসরকারি সংস্থা ব্রাকের অভিবাসন কর্মসূচির প্রধান শরিফুল হাসান জানান, জানুয়ারি থেকে এখন পর্যন্ত মাসে গড়ে প্রায় দু'শ জন করে নারী কর্মী সৌদি আরব থেকে ফিরে এসেছেন।তাদের অনেকেই ফিরে যৌন নির্যাতন থেকে শুরু করে নানা ধরণের শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতনের অভিযোগ করেছেন।

দু'বছরের চুক্তিতে গেলেও মাত্র ১১ মাস পরে গত শনিবার খালি হাতে (সৌদি আরব থেকে) দেশে ফিরে এসেছেন সুনামগঞ্জের তাসলিমা আক্তার। সৌদিতে কাজ করতে গিয়ে বিপদের শিকার হওয়ার অভিজ্ঞতার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, অনেক আশা নিয়ে ওই দেশে গিয়েছিলাম। গিয়ে দেখলাম তেমন কিছু না। দালাল বলেছিল, সেখানে গেলে ২০ হাজার টাকা দেবে, মোবাইল দেবে, কথা বলতে দেবে, কাপড় চোপড়-সাবান তেল সবকিছু ফ্রি। কিন্তু আসলে তেমন কিছু না, ঠিকমত বেতন দেয় না, নিজের গাঁট থেকে টাকা দিয়ে সবকিছু কিনতে হয়।"

তাসলিমা আক্তার বলেন, আমার প্রায় আট মাসের বেতন বাকি। বেতন চাইলে বলে তোর আকামা হয় নি, আকামা করাতে আড়াই লাখ টাকা লাগবে - এরকম অনেক কিছু বোঝাতো। আমি নিয়োগকর্তা মহিলাকে বলেছিলাম, সাত-আট মাস বাড়িতে টাকা পাঠাই নি, বেতন দে। সে আমার ওপর হাত তুলতে চেয়েছিল। তখন আমি পুলিশকে ফোন করি। পুলিশ আমাকে বাংলাদেশ দূতাবাসে নিয়ে যায়। সেখানে গিয়ে দেখি হাজার হাজার মেয়ে। অনেককে মেরেছে, কারো হাত ভেঙেছে, কারো পা ভেঙেছে, কারো গায়ে গরম পানি দিয়েছে - অনেক রকম নির্যাতন করেছে।

তিনি আরও বলেন, কোন কোন মেয়েকে নিয়োগদাতার ছেলেরা খারাপ নির্যাতন করেছে। কাউকে কাউকে এক দেড় বছর খাটিয়েছে, বেতন দেয় নি।সে তুলনায় আমার কমই হয়েছে - আমি এগারো মাস থেকেছি, পরনের কাপড়টাই ঠিকমত দেয় নি।

চারমাস বাংলাদেশ দূতাবাসের আশ্রয়ে থাকার পর সম্প্রতি দেশে ফিরে আসা তাসলিমা আক্তার, চাকরিতে যোগ দেওয়ার কয়েকমাস পরেই ন্যায্য পাওনা না দেওয়ায় আমি দেশে ফিরতে চেয়েছি। কিন্তু আমার নিয়োগদাতা আমাকে আসতে দেয় নি। আমার নামে কেস করেছে, যাতে জীবনেও বাংলাদেশে আসতে না পারি। মামলায় বলেছে, আমাকে আনতে তাদের চার-পাঁচ লাখ টাকা খরচ হয়েছে -সেই টাকা আমাকে ফেরত দিতে হবে। তখন আমি দূতাবাসে এসে অনেক কান্নাকাটি করেছি, হাতে পায়ে ধরেছি আমাকে দেশে ফেরত পাঠানোর জন্য। কিন্তু তারা বললেন, তোমার নামে তোমার কফিল (নিয়োগদাতা) মামলা করেছে। আমি বললাম, আমার যে বেতন বকেয়া তাতে প্রায় দুই-আড়াই লাখ টাকা হয় - সেটা আমি আর চাই না, আমি দেশে ফিরে যাবো।তারা আমাকে কোর্টে তুলেছে। আদালতের রায় পাবার পর আমি দেশে ফিরি। কোন টাকাপয়সা নিয়ে ফিরতে পারি নি। বরং আমাকে বাড়ি থেকে আরো লাখখানেক টাকা নিয়েছিল।

তসলিমা বলেন. যে মেয়েরা এখনো আরব দেশে যেতে চায় - তারা বুঝতে পারছে না সৌদি বা অন্য আরব দেশেরও পরিস্থিতি এখন অনেক খারাপ।যারা ফিরে এসেছে তারা কেউ আর সেখানে ফেরত যেতে চায় না। আমি গারমেন্টসে চাকরি করে খাবো, তবু বিদেশে যাবার নাম আর করবো না।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, নিয়ম অনুযায়ী সৌদি নিয়োগকর্তা যখন তার দেশের রিক্রুটিং এজেন্সির কাছে গৃহকর্মী চান, তখন তিনি সেই এজেন্সিকে প্রয়োজনীয় অর্থ প্রদান করেন।সেই এজেন্সি আবার বাংলাদেশী রিক্রুটিং এজেন্সির সাথে যোগাযোগ করে।এক্ষেত্রে বাংলাদেশী শ্রমিককে কোন অর্থ লেনদেন করতে হয় না। কিন্তু প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে শ্রমিকদের কাছ থেকে অর্থ আদায় করা হচ্ছে। মধ্যস্বত্ত্বভোগী এজেন্সিগুলো আর্থিক মুনাফার জন্য শ্রমিকদের 'বিক্রি' করে দিচ্ছে। জনপ্রতি ২০ হাজার টাকা থেকে এক লক্ষ টাকাও আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে শ্রমিকদের পক্ষ থেকে।

চুক্তি অনুযায়ী চাকরির প্রথম তিন মাস পর্যন্ত শ্রমিকের দায়দায়িত্ব রিক্রুটিং এজেন্সিকে বহন করতে হয়। কিন্তু তারপর গৃহকর্মী শ্রমিকের দায়দায়িত্ব আর রিক্রুটিং এজেন্সির থাকে না।

প্রবাসী শ্রমিকদের নিয়ে যারা কাজ করেন তারা বলছেন, ২০১৫ সালে শ্রমিক পাঠানোর চুক্তিতে নানা ধরনের দুর্বলতা রয়েছে যার খেসারত দিতে হচ্ছে নারী শ্রমিকদের। দেশে ফিরে আসার জন্য অনেককেই বাড়ি থেকে অর্থ চেয়ে পাঠাতে হচ্ছে। এখনও বহু নারী রিয়াদ এবং জেদ্দার 'সেফহোমে' বসবাস করছেন এবং বাড়ি ফেরার অপেক্ষায় রয়েছেন।