• শনিবার, ২৬ মে ২০১৮, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
  • ||

বই মেলায় আসছে ‘জেনারেলের কালো সুন্দরী’

প্রকাশ:  ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৭:৩৫ | আপডেট : ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৭:৪৬
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট
বই মেলায় আসছে সাংবাদিক কলামিস্ট পীর হাবিবুর রহমানের ‘জেনারেলের কালো সুন্দরী’। বইটি প্রকাশের  আগে লেখক ফেইসবুক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে বইটির পটভূমি সর্ম্পকে ধারনা দিয়েছেন। নিচে তার স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হল।

একাত্তরে বাংলাদেশে গণহত্যা চালিয়ে রক্তগঙ্গা বইয়ে দেয়া হয়েছিল। জাতির মহান নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গ্রেপ্তার করে ফাঁসি দণ্ডে লটকাতে চেয়েছিলেন জেনারেল ইয়াহিয়া। আরেকদিকে ইসলামাবাদের রাষ্ট্রপতি ভবনকে বেশ্যালয়ে পরিণত করেছিলেন জেনারেল ইয়াহিয়া। 

ঢাকা থেকে বাঙালি উচ্চাভিলাষী, ক্ষমতালোভী শামীম বা কালো সুন্দরী জেনারেলের রাতের বালা খানায় প্রচণ্ড ক্ষমতাসালী হয়ে উঠেছিলেন। সেই ছিনাল নারীদের তালিকায় আকলিমা মানে জেনারেল রানী, কওমি তারানা তরন্নুম, গায়িকা নূরজাহান, শরীফানসহ অসংখ্য রমনী জেনারেল ইয়াহিয়া হেরেমে তার শয্যাসঙ্গীনি হয়েছিলেন। রোজ রাতে ২ বোতাল হুইস্কি আর নারীর প্রয়োজন পরতো মাতাল ইয়াহিয়ার। ব্ল্যাকডক আর ব্ল্যাক বিউটি নারী মাংস লোভী ইয়াহিয়ার রাত জমিয়ে দিতো। শুধু জেনারেল ইয়াহিয়াই নয়, ঢাকা থেকে আইনজীবী আহাদের স্ত্রীকে রমনী মোহন একাত্তরের আরেক খলনায়ক জুলফিকার আলী ভুট্টো তুলে নিয়ে গিয়েছিলেন। নায়িকা মধুবালার জীবন তো শেষ করেছিলেনই। ইরানি গোলাপ নূসরাত ভুট্টোও আত্নহত্যা করতে চেয়েছিলেন।

সেই সময় ওপর তলা থেকে উচ্চাভিলাষী লোভী রমনীরা সরবরাহ হতেন ক্ষমতাবানদের হেরেমে। একালে ...........। জেনারেল ইয়াহিয়া থেকে ভুট্টো হয়ে ক্ষমতাবানদের হেরেমের লাম্পট্য, মাতলামি আর যৌনদানবদের যৌনদেবীদের নিয়ে বালাখানার রঙিন জীবন উঠে এসেছে এই উপন্যাসে। শেষ মহুর্তে কাজ করা আমার স্বভাব। শেষ মুহুর্তে তাড়াহুড়ো করে ব্যাগগুছোনো চরিত্র আমার। অন্যপ্রকাশের প্রকাশক বন্ধু মাজহারুল ইসলাম তাগিদ দিয়ে আমাকে দিয়ে লেখা আদায় করেন। এই বার বন্ধু এবিএম জাকিরুল হক টিটন লেগে না থাকলে অসুস্থ শরীর নিয়ে লেখার টেবিলে ডুব দেবার শক্তি আমার ছিল না। আর আমার সন্তানতুল্য উৎপল দাস যদি পাশে না দাঁড়াতো এই উপন্যাস লেখা সম্ভব হতো না।

জেনারেলের কালো সুন্দরী উপন্যাসে ক্ষমতাবানদের বেপোরোয়া যৌনজীবন সমাজের উঁচুদরের রমনীদের ছিনালিপনা উঠে আসায় এই উপন্যাস প্রাপ্ত বয়স্কদের হাতে উঠুক।
জাতির মহান নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানর নেতৃত্বে একটি জাতির সংগ্রাম, বিজয় ও পাকিস্তানি জেনারেল রাও ফরমান আলী থেকে পূর্ববাংলার কসাই টিক্কা খানের নৃশংসতা যেমন উঠে এসেছে তেমনি নিয়াজির আত্নসমর্পণই নয়, পরাজিত দানবের কান্নার করুণ চিত্র ও উঠে এসেছে।

অনুজপ্রতীম প্রখ্যাত শিল্পী ধ্রুব এষ প্রচ্ছদ করে দিয়ে কৃতজ্ঞ করেছেন। একুশের বইমেলায় শিগগির পাঠকরা বইটি পাবেন। পাঠক হৃদয় খুশি হলেই আমি খুশি...।
/মজুমদার