• বুধবার, ১৫ আগস্ট ২০১৮, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৫
  • ||

সিএসই’র প্রস্তাব বাজেটে প্রতিফলিত হয়নি

প্রকাশ:  ১১ জুন ২০১৮, ১৫:২০
বিজনেস ডেস্ক
প্রিন্ট

পুঁজিবাজারের টেকসই উন্নয়ন ও গুণগত মান সম্প্রসারণের জন্য যে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল, তা প্রস্তাবিত বাজেটে প্রতিফলিত হয়নি বলে দাবি করেছে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই)। পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানটি বাজেটে তাদের প্রস্তাবগুলো বিবেচনার দাবি জানিয়েছে।

সম্পতি চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) আয়োজিত প্রস্তাবিত বাজেটের প্রতিক্রিয়া জানিয়ে এ কথা বলেন সংগঠনের নেতারা।

সংগঠনের নেতারা বলেন, সিএসইর দাবি কোনোভাবেই অর্থমন্ত্রীর প্রস্তাবিত বাজেটে প্রতিফলিত হয়নি। আমরা চেয়েছিলাম তালিকাভুক্ত ও অতালিকাভুক্ত কোম্পানির কর হার ১৫% করতে। যা এখন ১০%। এই ব্যবধান বাড়ালে বাজারে ভালো কোম্পানি আসতে উৎসাহিত হবে। এতে পুঁজিবাজারের সম্প্রসারণ ও মান বৃদ্ধি পেত। তবে তা হয়নি।

সিএসইর প্রস্তাবগুলো হচ্ছে,

১.সরকারি কোম্পানিগুলোকে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত করণের জন্য সুস্পষ্ট তাগিদ এবং নির্দেশনা।

২.বহুজাতিক কোম্পানিসমূহকে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তি নিশ্চিত করণের জন্য আহনী সংস্কার।

৩.বন্ড মার্কেটসহ পুঁজিবাজারের এডভ্যান্স প্রডাক্ট চালু করার কাঠামোগত সংস্কার।

৪. প্রাইভেট সেক্টরে বৈদেশিক ঋণ এবং সিন্ডিকেটিং ফাইন্যান্সিং অনুমোদনের সময় পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির শর্তারোপ।

৫.পুঁজিবাজার বিকাশের জন্য জাতীয় ভিত্তিক শক্তিশালী সমন্বয় কমিটি গঠন।

৬. ব্যাংক, বিমা ও আর্থিক কোম্পানিগুলোর জন্য ২.৫% কর্পোরেট কর কমানোর সুবিধা সকল লিস্টেড কোম্পানির জন্য প্রদান করা। ক্রমান্বয়ে লিস্টেড ও নন-লিস্টেড কোম্পানির কর্পোরেট কর হারের ব্যবধান বর্ধিতকরণের সুস্পস্ট ঘোষণা।

৭. লিস্টেড কোম্পানি থেকে প্রাপ্ত লভ্যাংশ আয় থেকে দ্বৈত কর রোহিতকরণ। ৮.পুঁজিবাজারে অবকাঠামো টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে মানসম্মত এবং লাভজনক কর্পোরেট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তি করার জন্য আইনি বাধ্যবাধকতা, রেগুলেটরি সমন্বয় এবং আর্থিক প্রণোদনা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কৌশল প্রনয়ন।

৯.পুঁজিবাজারের উন্নয়নের লক্ষ্যে বিনিয়োগকারীসহ পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট সকল প্রতিষ্ঠানের জন্য উপোযোগী এবং কার্যকর ব্যবসায়িক মডেল নিশ্চিত করার জন্য মেয়াদি কৌশল হিসাবে লেনদেনের উপর ধার্য করা উৎস কর কমানো এবং নতুন কোম্পানি তালিকাভুক্তি করার জন্য প্রণোদনা ঘোষণা।

১০. ক্যাপিটাল মার্কেট স্পেশাল প্রতিষ্ঠান হিসেবে আইসিবির ভুমিকা নিশ্বিত করার জন্য আইসিবিকে আর্থিকভাবে শক্তিশালী করা, বিভিন্ন ব্যাংক কতক আইসিবিকে প্রদত্ত ফান্ড ও ক্যাপিটাল মার্কেট সংশ্লিষ্ট বিনিয়োগের বাইরে আইসিবির ভূমিকা সীমিতকরণ।

১১. সিএসইর ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন প্রক্রিয়ার সফল বাস্তবায়ন তথা স্টেটেজিক ইনভেস্টর অন্তভূক্তকরণের স্বার্থে এক্সচেঞ্জগুলোকে পরবর্তী তিন বছর ১০০% কর অবকাশ সুবিধা বহাল করা।

ওএফ

সিএসই