• বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮, ৩ কার্তিক ১৪২৫
  • ||

পালং শাকের পুষ্টিগুণ

প্রকাশ:  ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৭:২০
লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রিন্ট

পালং শাকের রয়েছে অনেক গুণ। তাই সুস্থ থাকতে খাদ্য তালিকায় পালং শাক রাখতে পারেন। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ও মিনারেলস। এছাড়া মোটামুটি সব ভিটামিনেরই সমস্বয় পাওয়া যায় এই শাকটিতে। এছাড়া আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, জিঙ্ক, কপার ও প্রোটিন তো থাকছেই। আজ জেনে নিন পালং শাকেে কিছু পুষ্টিগুণের কথা।

ওজন নিয়ন্ত্রণে আসে

পালংশাক নিয়মিত খেলে শরীর ভারী হতে পারে না। গবেষণায় দেখা গেছে, ১০০ গ্রাম করে সিদ্ধ পালং বা পালং এর রস খেলে শরীরে ডায়াটারি ফাইবারের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়। তাই অনেকক্ষণ পেট ভরা থাকে, বার বার ক্ষুধাও লাগে না। তাই ওজন বাড়ারও ভয় থাকে না। তাই নিয়মিত এই শাকের ওপর ভরসা রাখুন।

সূর্যের অতিবেগুলি রশ্মি থেকে ত্বককে রক্ষা

পালং শাকে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি, যা অতি বেগুনি রশ্মির কারণে যাতে ত্বকের ক্ষতি হতে দেয় না। তাই স্বাভাবিকভাবে ত্বক পুড়ে যাওয়ার ভয় কম থাকে। আর স্কিন ক্যানসার থেকেও আমাদের অনেকটাই সুরক্ষিত রাখে। এজন্য পালং শাক থেতো বা রসের পেস্ট বানিয়ে মুখে লাগাতে হবে। সপ্তাহে দুইবার ব্যবহার করলেই উপকার মিলবে।

ক্যানসারের ঝুঁকি কমায়

পালং শাকে থাকা ফ্লেবোনয়েড ক্যানসার সেল জন্মাতে বাধা দেয়। ফলে ক্যানসার হওয়ার ঝুঁকি কিছুটা হলেও কমিয়ে দেয়। আর ক্যানসারের পুরোপুরি চিকিৎসা যেহেতু নেই, তাই আগে থেকেই একটু সতর্ক হতেই পারি আমরা।

দৃষ্টিশক্তি ভালো হয়

পালং শাকে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে বিটা-ক্যারোটিন, লুটেইন এবং জ্যান্থিন। এগুলো চোখের রেটিনার ক্ষমতা বাড়ানোর মধ্যে দিয়ে দৃষ্টিশক্তির উন্নতি ঘটায়। শুধু তাই নয়, এই শাকে থাকা ভিটামিন এ আই আলসার এবং ড্রাই আইয়ের মতো সমস্যাও কমাতে পারে।

চুল পড়া কমায়

অতিরিক্ত চুল পড়া আমাদের সবারই একটি কমন সমস্যা। চুলের পরিচর্যায় পালং শাককে কাজে লাগাতে পারেন। কারণ এই শাকে রয়েছে আয়রন যা চুল পড়ার পরিমাণ কমিয়ে দিতে পারে। এজন্য পালং শাকের রস বানিয়ে ভালো করে চুলে লাগিয়ে কিছু সময় রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে। আর এভাবে পরিচর্যা না করে নিয়মিত পালং শাকের রসও খেতে পারেন, একই ফল পাবেন। আর পালং শাকে থাকা ভিটামিন বি,সি, ই, পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম এবং ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড স্কাল্পে পুষ্টি যোগায়।

মস্তিস্ক সচল রাখে

পালং শাকে পটাশিয়াম, ফলেট এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে। ফলে এটি খেলে মস্তিষ্কের বিশেষ কিছু অংশ শক্তিশালী হয়ে ওঠে। ফলে স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি পায়। সেই সঙ্গে পটাশিয়ামের কারলে মনোযোগ ক্ষমতারও উন্নতি ঘটে।

ত্বক উজ্জ্বল হয়

পালং শাকে থাকা ভিটামিন কে এবং ফলেট ত্বককে ফর্সা করে, ডার্ক সার্কেল দূর করে। এতে উজ্জ্বলতা বাড়ার পাশাপাশি ত্বক ভেতর থেকে সুন্দরও করে। এক্ষেত্রে পালং শাকের পেস্ট বা রস মুখে লাগাতে পারেন, আবার পালং শাক খেতেও পারেন। এছাড়া পালং শাক ত্বকের ব্রণও কমিয়ে দিতে পারে। কারণ ত্বকে জমে থাকা ক্ষতিকর উপাদান বের করে আনতে পারে এই শাক। সেই সঙ্গে ত্বকের বিভিন্ন প্রদাহও কমিয়ে দেয়।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে

পালং শাকে পটাশিয়াম খনিজটি থাকায় শরীরে এটি সোডিয়াম বা লবণের ভারসাম্য রক্ষা করে। ফলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের বাইরে যেতে পারে না। আর পালং শাকে থাকা ফলেটও রক্তচাপ স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে। তাই রক্তচাপের রোগীরা নিয়মিত পালং শাক খান।

পেশির ক্ষমতা বাড়ে

পালং শাকের থাকা বিভিন্ন অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হার্টের পেশির কর্মক্ষমতা বাড়ানোর পাশাপাশি শরীরের অন্য পেশির শক্তি বাড়াতেও বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। ফলে হাইপারলিপিডেমিয়া, হার্ট ফেলিওর এবং করোনারি হার্ট ডিজিজের মতো রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা কমে, শরীরের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।

সূত্র: বোল্ডস্কাই

/রবিউল

পালং শাক,অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট