• রবিবার, ১৯ আগস্ট ২০১৮, ৪ ভাদ্র ১৪২৫
  • ||

‘নূরজাহান’ নায়িকা পূজাকে নিয়ে যা বললেন রাজ চক্রবর্তী

প্রকাশ:  ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৫:৩৩ | আপডেট : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৬:২০
বিনোদন ডেস্ক
প্রিন্ট

গতকাল সন্ধ্যায় রাজধানীর ঢাকা ক্লাবে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল বাংলাদেশের পূজা ও কলকাতার আদৃত অভিনীত ‘নূর জাহান’ ছবির মুক্তি উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলন। এতে উপস্থিত ছিলেন কলকাতার সুপারহিট নির্মাতা রাজ চক্রবর্তী। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের পূজা চেরিকে নিয়ে নানান কথা বলেন কলকাতার সুপারহিট নির্মাতা রাজ চক্রবর্তী।

রাজ চক্রবর্তী তার বক্তব্যের মাঝে বলেন, ‘পূজা অনেক সুইট একটা মেয়ে। ওর মধ্যে ভালো অভিনয় করার ক্ষমতা রয়েছে, সেটা বের করে আনতে হবে। যদিও পূজা একটু দুষ্টু হয়ে যাচ্ছে। তারপরেও ওকে ঠিক মত নির্দেশনা দিতে হবে। তাহলেই পূজা হবে আগামীর সুপারস্টার’।

দেব অভিনীত ‘চ্যালেঞ্জ’ ছবির এই পরিচালক বলেন, আজিজ ভাই যখন আমার কাছে পূজাকে পাঠালেন তখন আমি তার লুক টেস্ট নেই। এরপর আজিজ ভাইকে শুধু একটাই কথা বলি, পূজাকে আমার কাছে দিয়ে দেন।

ভারত বাংলাদেশ যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত হয়েছে ‘নূর জাহান’। তবে এই ছবিটি পরিচালনা নয়, ইন্ডিয়া থেকে একাংশের প্রযোজনা করেছে রাজ চক্রবর্তীর প্রডাকশন হাউজ। সেই হিসেবে রাজ চক্রবর্তী এ ছবির প্রযোজক।

রাজ চক্রবর্তী আরো বলেন, সিনেমা নির্মাণ করা আমার ফ্যাশন। সবসময় আমি নতুনদের নিয়ে বেশি কাজ করি। বোঝে না সে বোঝে না, চিরদিনই তুমি যে আমার, লে ছক্কা এসব ছবি যখন বানিয়েছিলাম দেব, সোহম নতুন ছিল।

পূজাও এখন নতুন। ওর মধ্যে সম্ভাবনা দেখেছি বলেই ওকে কাজে নিয়েছি। সত্যি কথা বলতে কি সুপারস্টার নিয়ে ছবি বানানোর আগ্রহ আমার কম। আপনারা আপনাদের পূজাকে সাপোর্ট করুন। আমাদের পাশে থাকুন।

‘নূর জাহান’ ছবিতে পূজার বিপরীতে অভিনয় করেছেন কলকাতার নবাগত নায়ক আদিত। রাজ বলেন, হৃদয় ছোঁয়া একটি প্রেমের গল্পের ছবি। এই ছবি দেখার পর কাপলদের মধ্যে প্রেম আরো বাড়বে।

রাজ চক্রবর্তী বলেন, কলকাতার চেয়ে এদেশের মানুষ বাংলা সিনেমা বেশি পছন্দ করে। এখানে ভালো ছবি বানাতে পারলে অবশ্যই দর্শক গ্রহণ করবে। শুধু মনোযোগ দিয়ে ছবি বানাতে পারলেই হবে।

১৬ ফেব্রুয়ারি কলকাতায় ৭০ এবং বাংলাদেশে ৩০ টির মত সিনেমা হলে ‘নূর জাহান’ মুক্তি পেতে যাচ্ছে। এই ছবির মাধ্যমে নায়িকা হিসেবে অভিষেক হতে যাচ্ছে পূজার।

উল্লেখ্য, কলকাতার প্রথম সারির নির্মাতা রাজ চক্রবর্তী। পরিচালনায় আসার আগে তিনি থিয়েটার করতেন। তখন চরম আর্থিক সংকটে পড়েছিলেন। সেজন্য নিজেই টেকনিশিয়ান হিসেবে কাজ শুরু করেছিলেন। তারপর ১৭ টি টেলিভিশন প্রোগামসহ জি বাংলার মীরাক্কেল, সারেগামার সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করেছেন। এরপর ২০০৮ সালে ‘চিরদিনই তুমি যে আমার’ ছবিটি বানিয়ে রাতারাতি তারকা নির্মাতা বনে যান।

/এ আই