• বুধবার, ২০ জুন ২০১৮, ৬ আষাঢ় ১৪২৫
  • ||
শিরোনাম

সুইডেনের পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তি দিয়ে বাংলাদেশকে সহযোগিতার আহ্বান

প্রকাশ:  ৩১ মে ২০১৮, ২০:৫২
স্পেন প্রতিনিধি
প্রিন্ট
সুইডেনের পার্লামেন্টে দেশটির সংসদ সদ্যদের কাছে পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তি দিয়ে বাংলাদেশকে সহযোগিতা করার আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ সরকারের বন ও পরিবেশ উপমন্ত্রী আব্দুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব।  বুধবার (৩০ মে ) সুইডিশ পার্লামেন্টে 'গ্লোবাল ওয়ার্মিং, ইফেক্ট অ্যান্ড মিটিগেশন ইন বাংলাদেশ অ্যান্ড জার্নি টু গ্রীন এনার্জি' শীর্ষক এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহ্বান জানান।

বুধবার বিকেল ২টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ওই সেমিনার আয়োজন করেছিল বঙ্গবন্ধু প্রকৌশল ও বিশেষজ্ঞ পরিষদ ইউরোপ শাখা। এ সময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে আব্দুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বাংলাদেশ সরকারের গৃহীত নানা পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন।

আলোচনায় আরও অংশগ্রহণ করেন সুইডিশ পার্লামেন্টের সংসদ সদস্য জেন্স হোল্ম, ইয়ান লিন্ডহোল্ম, স্টেফান নীলসন, জুটাবোরি কোম্পানির সিইও ক্রিস্টিনা অস্টারগেন, লুন্ডব্যাক কোম্পানির কনসালটেন্ট বিশিষ্ট জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডক্টর ফরহাদ আলী খান,  ভিওলা ভিটালিস কোম্পানির সিইও আর্সেনিক বিশেষজ্ঞ ডক্টর আব্দুল কাদের এবং ভিওলা ভিটালিসের প্রজেক্ট ম্যানেজার যুবায়দুল হক সবুজ।

সেমিনারে বক্তারা পরিবেশ রক্ষায় গৃহীত বিভিন্ন প্রকল্পের জন্য বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং কার্বন ডাই অক্সাইড ইমিশন কমিয়ে গ্রীন এনার্জির ব্যবহার বাড়িয়ে বিশ্বকে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের নিকট নিরাপদ রাখার জন্য কর্ম পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করেন। 

সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার মাহফুজ ভূঁইয়া এবং পরিচালনা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার হেদায়েতুল ইসলাম শেলী।  

সভাপতির ভাষণে টেলিয়া কোম্পানির প্রধান আর্কিটেক্ট ইঞ্জিনিয়ার মাহফুজ ভূঁইয়া তার বক্তব্যে বলেন, বিশ্বকে বিকল্প এনার্জির উৎপাদন বাড়াতে হবে যেমন বর্জ্য থেকে এনার্জি, সৌর শক্তির ব্যবহার, উইন্ড পাওয়ার, এনার্জি সাশ্রয়ী প্রযুক্তি, পরিবেশবান্ধব এনার্জি, পরিবেশবান্ধব অবকাঠামো নির্মাণ ইত্যাদি ও শক্তির অপচয় রোধে ডিজিটালাইজেশন ও আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের ওপর গুরুত্ব আরোপ করতে হবে। 

এ সময় সেখানে দূতাবাসের দ্বিতীয় সচিব সায়মা রাজ্জাকি, সুইডিশ কয়েকজন পরিবেশ বিশেষজ্ঞ এবং সুইডেনে বসবাসরত বাংলাদেশি কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

বক্তারা আশা প্রকাশ করেন, ওই সেমিনারের মাধ্যমে সুইডেন সরকার বাংলাদেশকে বিভিন্ন পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তি দিয়ে সহযোগিতা করবে। এতে অর্থনৈতিক সম্পর্কের নতুন দ্বার উন্মোচিত হবে এবং বাংলাদেশ ও সুইডেনের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক জোরদার হবে।

ওএফ