• মঙ্গলবার, ২১ আগস্ট ২০১৮, ৬ ভাদ্র ১৪২৫
  • ||

আনোয়ার ইব্রাহিমের মুক্তির অপেক্ষায় হাজার হাজার মানুষ

প্রকাশ:  ১৬ মে ২০১৮, ০৯:৪২
আহমাদুল কবির (মালয়েশিয়া)
প্রিন্ট

মালয়েশিয়ার সাবেক উপপ্রধানমন্ত্রী আনোয়ার ইব্রাহিম মুক্তি পাচ্ছেন আজ। বুধবার সকাল থেকে চেরাস হাসপাতালের সামনে হাজার হাজার মানুষ অপেক্ষায় রয়েছেন তাকে এক নজর দেখার জন্য। এ দিকে রাজা ইয়াং ডি-পারতুয়ান আগং মঙ্গলবার তাকে সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেন।

আনোয়ার ইব্রাহিম ২০১৫ সাল থেকে জেলে রয়েছেন। এ বিষয়ে রাজা ইয়াং ডি-পারতুয়ান আগংয়ের অফিস থেকে একটি বিবৃতি দেয়া হয়েছে। তাতে বলা হয়েছে, আনোয়ার ইব্রাহিমের মুক্তির সব বিষয়ে সন্তুষ্ট তিনি।

এবিষয়ে রাজপ্রাসাদের কর্মকর্তা আহমাদ দাহলান বলেছেন, আজই মুক্তি পাচ্ছেন আনোয়ার ইব্রাহিম। তাতে সম্মতি রয়েছে ইয়াং ডি-পারতুয়ান আগংয়ের। এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী মাহাথিরের সঙ্গে আলোচনা করেছেন উপপ্রধানমন্ত্রী ও আনোয়ার ইব্রাহিমের স্ত্রী আজিজাহ ওয়ান ইসমাইল।

আনোয়ার ইব্রাহিমের জামিন নিশ্চিত করেছেন আনোয়ারের দল পার্টি কেদিলান রাকাইয়াত (পিকেআর) ও তার নিজের আইনজীবী আর সিবারাসা।

তিনি বলেছেন, পরিবারের পক্ষ থেকে আনোয়ার ইব্রাহিমের মুক্তি দাবি করে আবেদন জানানো হয়েছিল। বলা হয়েছিল, তিনি ভুল বিচারের শিকার হয়ে শাস্তি ভোগ করছেন। এ ছাড়া তার বর্তমান স্বাস্থ্যগত অবস্থার কথা তুলে ধরা হয়েছিল।

উল্লেখ্য, আনোয়ার ইব্রাহিম বর্তমানে রাজধানী কুয়ালালামপুরে চেরাস রিহ্যাবিলিটেশন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তার কাঁধে একটি অপারেশন হয়েছে। আস্তে আস্তে তিনি সুস্থ হয়ে উঠছেন।

এর আগে আনোয়ার ইব্রাহিমের মেয়ে নুরুল ইজ্জাহকে উদ্ধৃত করে শনিবার চ্যানেল নিউজ এশিয়া জানিয়েছিল, আনোয়ার ইব্রাহিমকে মঙ্গলবারই মুক্তি দেয়া হবে। তিনি মুক্তি পেলেই কি মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী হবেন কিনা এমন গুঞ্জনও আছে।

তবে তার স্ত্রী ও উপপ্রধানমন্ত্রী আজিজা বলেছেন, তাকে প্রধানমন্ত্রী করার জন্য কোনো তাড়াহুড়ো নেই। তিনি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী মাহাথিরের ওপর আস্থাশীল। বুধবারের নির্বাচনে মাহাথিরের নেতৃত্বাধীন পাকাতান হারাপান জোট ২২২ আসনের পার্লামেন্টে ১১৩ আসনে বিজয়ী হয়। এর মধ্যে আনোয়ারের পিকেআর পায় ৪৮ আসন।

এখন মাহাথির প্রধানমন্ত্রিত্ব থেকে সরে দাঁড়ালে তিনিই হবেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী- জোট গড়ার আগে এমনই চুক্তি হয়েছে তাদের মধ্যে। কিন্তু এরই মধ্যে বলা হয়েছে, ক্ষমতার প্রথম দু’বছর দায়িত্বে থাকবেন মাহাথির।

এসময়ে সাধারণ ক্ষমার মাধ্যমে আনোয়ারকে তিনি মুক্তি দেবেন। একটি আসনে উপনির্বাচনে তাকে বিজয়ী করে আনবেন। তারপর তার হাতে ক্ষমতা তুলে দেবেন। আনোয়ার ইব্রাহিমের বয়স এখন ৭০ বছর। সমকামিতার অভিযোগে ২০১৫ সালে তাকে ৫ বছরের জেল দেয়া হয়। এ অভিযোগকে তিনি তার রাজনৈতিক ক্যারিয়ার ধ্বংসের জন্য রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলে আখ্যায়িত করেন।

এ দিকে আনোয়ার ইব্রাহিমের মুক্তি উপলক্ষে তার দল পিকেআর-নেতাকর্মীদের মধ্যে আনন্দ-উৎফুল্লতা বিরাজ করছে। মুক্তির পর বিকেলে তিনি পরিবার, আত্মীয় স্বজন ও দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে মতবিনিময় সভা করতে পারেন। একইভাবে রাতে নেতাকর্মী ও দেশবাসীর উদ্দেশে বক্তৃতা দেওয়ারও সম্ভবনা রয়েছে।

এদিকে আগামী ১ জুন থেকেই আলোচিত জিএসটি (সরকারি ট্যাক্স ৬ শতাংশ) তুলে দেওয়া হচ্ছে এবং তেলের দাম কমানো হচ্ছে বলে জানা গেছে। বর্তমান ক্ষমতাসীন জোটের প্রধান এবং প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদের পূর্ব ঘোষণারই বাস্তবায়ন হচ্ছে।

জানা গেছে, দীর্ঘদিন জেলে থাকা আনোয়ার ইব্রাহিম ফের রাজনীতিতে সক্রিয় হবেন। প্রধানমন্ত্রীসহ তিনটি মন্ত্রিসভা ঠিক হলেও বাকী মন্ত্রিসভার সদস্য এখনও গঠন করা হয়নি। আনোয়ার ইব্রাহিম মুক্তি পাওয়ার পর মন্ত্রিসভা গঠনে ভূমিকা রাখবেন বলে মনে করা সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।